রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৮ বছর পরও পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় ব্যর্থ যুক্তরাজ্য

যুক্তরাজ্য আট বছর পর পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। তবে এবারও সফল হয়নি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের এই পরীক্ষা। গত ৩০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলের একটি সাইটে ট্রাইডেন্ট-২ পরীক্ষা চালায়।

বিবিসি বলছে, পরমাণুচালিত ব্রিটিশ সাবমেরিন এইচএমএস ভ্যানগার্ডের বোর্ডে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার সময় একটি ত্রুটি ধরা পড়ে। বুধবার যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, এর আগে ২০১৬ সালের জুনে ফ্লোরিডা উপকূলেই যুক্তরাজ্যের ট্রাইডেন্ট পারমাণবিক প্রতিরোধ ব্যবস্থার একটি পরীক্ষা ব্যর্থ হয়। আর সর্বশেষ ব্যর্থতার ঘটনাটি গত ৩০ জানুয়ারি ঘটেছে বলে দাবি করা হয়েছে দ্য সান পত্রিকা।

সিএনএন এক সূত্রের বরাতে জানিয়েছে, সান প্রতিবেদনটি সঠিক। এ ক্ষেত্রে ট্রাইডেন্ট-২ ক্ষেপণাস্ত্র এবং একটি ডামি ওয়ার হেডকে বাতাসের সাহায্য চালিত করা হলেও ক্ষেপণাস্ত্রের প্রথম পর্যায়ের বুস্টারগুলো জ্বলতে ব্যর্থ হয়। পরে তা সমুদ্রে ডুবে যায়।

এদিকে পরীক্ষা চালানোর সময় প্রতিরক্ষামন্ত্রী গ্রান্ট শ্যাপস এইচএমএস ভ্যানগার্ড নামের সাবমেরিনটিতে উপস্থিত ছিলেন বলে নিশ্চিত করেছেন ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। এ সময় যুক্তরাজ্যের ফার্স্ট সি লর্ড অ্যাডমিরাল স্যার বেন কি-ও বোর্ডে ছিলেন।

যুক্তরাজ্যের রয়্যাল নেভির তথ্য অনুসারে, দেশটির চারটি পারমাণবিক শক্তিচালিত ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র সাবমেরিন রয়েছে। তবে প্রতিটি সাবমেরিনই আমেরিকার নির্মিত ট্রাইডেন্ট-২ ডি-৫ মিসাইল দিয়ে সজ্জিত। এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো দিয়ে চার হাজার মাইল দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা যায়।

৮ বছর পরও পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় ব্যর্থ যুক্তরাজ্য

প্রকাশের সময় : ১২:৪৬:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যুক্তরাজ্য আট বছর পর পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। তবে এবারও সফল হয়নি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের এই পরীক্ষা। গত ৩০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা উপকূলের একটি সাইটে ট্রাইডেন্ট-২ পরীক্ষা চালায়।

বিবিসি বলছে, পরমাণুচালিত ব্রিটিশ সাবমেরিন এইচএমএস ভ্যানগার্ডের বোর্ডে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার সময় একটি ত্রুটি ধরা পড়ে। বুধবার যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, এর আগে ২০১৬ সালের জুনে ফ্লোরিডা উপকূলেই যুক্তরাজ্যের ট্রাইডেন্ট পারমাণবিক প্রতিরোধ ব্যবস্থার একটি পরীক্ষা ব্যর্থ হয়। আর সর্বশেষ ব্যর্থতার ঘটনাটি গত ৩০ জানুয়ারি ঘটেছে বলে দাবি করা হয়েছে দ্য সান পত্রিকা।

সিএনএন এক সূত্রের বরাতে জানিয়েছে, সান প্রতিবেদনটি সঠিক। এ ক্ষেত্রে ট্রাইডেন্ট-২ ক্ষেপণাস্ত্র এবং একটি ডামি ওয়ার হেডকে বাতাসের সাহায্য চালিত করা হলেও ক্ষেপণাস্ত্রের প্রথম পর্যায়ের বুস্টারগুলো জ্বলতে ব্যর্থ হয়। পরে তা সমুদ্রে ডুবে যায়।

এদিকে পরীক্ষা চালানোর সময় প্রতিরক্ষামন্ত্রী গ্রান্ট শ্যাপস এইচএমএস ভ্যানগার্ড নামের সাবমেরিনটিতে উপস্থিত ছিলেন বলে নিশ্চিত করেছেন ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। এ সময় যুক্তরাজ্যের ফার্স্ট সি লর্ড অ্যাডমিরাল স্যার বেন কি-ও বোর্ডে ছিলেন।

যুক্তরাজ্যের রয়্যাল নেভির তথ্য অনুসারে, দেশটির চারটি পারমাণবিক শক্তিচালিত ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র সাবমেরিন রয়েছে। তবে প্রতিটি সাবমেরিনই আমেরিকার নির্মিত ট্রাইডেন্ট-২ ডি-৫ মিসাইল দিয়ে সজ্জিত। এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো দিয়ে চার হাজার মাইল দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা যায়।