রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুবিতে শুদ্ধাচার ও সুসাশন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রীতি বিতর্ক প্রতিযোগিতা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা কার্যালয়ের উদ্যোগে শুদ্ধাচার ও সুসাশন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রীতি বিতর্ক-২০২৪ আয়োজন করা হয়েছে।  রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেল আড়াইটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান ও কলা অনুষদের ৫০১ নম্বর রুমে এই বিতর্কের আয়োজন করা হয়। বিতর্কের বিষয়বস্তু ছিল “স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে দুর্নীর্তিই প্রধান অন্তরায়”।
বিতর্কে বিজয়ী সরকার পক্ষ দল ‘ভাষা শহীদ রফিক’। সেরা বিতর্কিক হয়েছেন বিরোধী দলের নেতা অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফাতেহা আক্তার।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক অমিত দত্তের সঞ্চালনায় এবং ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক  ড.মোহা: হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য প্রফেসর ড. এ এফ এম আবদুল মঈন।
বিতর্ক শেষে সভাপতির বক্তব্যে ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহা: হাবিবুর রহমান বলেন, সবাই ভালো করেছে। ফলাফল যায় হোক না কেনো যোগদানই সেরা কৃতিত্ব। বিচারকের দৃষ্টিকোণ থেকে এক দলকে বিজয়ী করতেই হবে। আজকে যারা বিতর্ক করছেন তারা একদিন মঞ্চে বিচারক হিসেবে আসবেন।
এসময় উপচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, বিতর্ক প্রতিযোগিতাটি আনন্দদায়ক ছিল। আমি উপভোগ করেছি। বিদেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও বিতর্কের প্রচলন রয়েছে। বিতর্কের স্বার্থে  আমরা যাই বলি না কেনো বিতর্ক আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে। হাইকোয়ালিটির কালচার তৈরি করার জন্য প্রতিটি বিভাগে বিতর্কের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কোষাধ্যক্ষ  অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান খান বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ শামসুজ্জামান মিলকী, একই বিভাগের প্রভাষক গোলাম মোহাম্মদ পাভেল।

কুবিতে শুদ্ধাচার ও সুসাশন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রীতি বিতর্ক প্রতিযোগিতা

প্রকাশের সময় : ০৯:০৯:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা কার্যালয়ের উদ্যোগে শুদ্ধাচার ও সুসাশন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রীতি বিতর্ক-২০২৪ আয়োজন করা হয়েছে।  রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেল আড়াইটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান ও কলা অনুষদের ৫০১ নম্বর রুমে এই বিতর্কের আয়োজন করা হয়। বিতর্কের বিষয়বস্তু ছিল “স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে দুর্নীর্তিই প্রধান অন্তরায়”।
বিতর্কে বিজয়ী সরকার পক্ষ দল ‘ভাষা শহীদ রফিক’। সেরা বিতর্কিক হয়েছেন বিরোধী দলের নেতা অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফাতেহা আক্তার।
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক অমিত দত্তের সঞ্চালনায় এবং ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক  ড.মোহা: হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য প্রফেসর ড. এ এফ এম আবদুল মঈন।
বিতর্ক শেষে সভাপতির বক্তব্যে ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহা: হাবিবুর রহমান বলেন, সবাই ভালো করেছে। ফলাফল যায় হোক না কেনো যোগদানই সেরা কৃতিত্ব। বিচারকের দৃষ্টিকোণ থেকে এক দলকে বিজয়ী করতেই হবে। আজকে যারা বিতর্ক করছেন তারা একদিন মঞ্চে বিচারক হিসেবে আসবেন।
এসময় উপচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, বিতর্ক প্রতিযোগিতাটি আনন্দদায়ক ছিল। আমি উপভোগ করেছি। বিদেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও বিতর্কের প্রচলন রয়েছে। বিতর্কের স্বার্থে  আমরা যাই বলি না কেনো বিতর্ক আমাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে। হাইকোয়ালিটির কালচার তৈরি করার জন্য প্রতিটি বিভাগে বিতর্কের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কোষাধ্যক্ষ  অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান খান বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ শামসুজ্জামান মিলকী, একই বিভাগের প্রভাষক গোলাম মোহাম্মদ পাভেল।