বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘কর্মমুখী প্রশিক্ষণ ও বিদেশী ভাষা শিখে প্রবাসে যেতে হবে-সচিব মোকাব্বির

“আয় আর একটিবার আয়রে সখা, প্রাণের মাঝে আয়, মোরা সুখে দুখের কথা কব, প্রাণ জুড়াবে তায়” এনসি-(১৯৭৭-১৯৮২) বন্ধুদের দ্বিতীয় পুনর্মিলন ও আনন্দ ভ্রমণ-২০২৪ মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার নৈসর্গিক সৌন্দর্য মন্ডিত লংলা ভ্যালি ক্লাবে শুক্রবার ( ১লা মার্চ) অনুষ্ঠিত হয়।
সকাল ১০টায় যাত্রা শুরু করে লংলা ভ্যালি ক্লাবে পৌঁছে প্রথমে ফানুস ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন বন্ধু বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র সচিব মোকাব্বির হোসেনসহ বন্ধুরা। চা চক্রের শেষে উন্মুক্ত স্মৃতি চারণ করেন সিনিয়র শিক্ষক বাবুল উদ্দিন খান, সাংবাদিক স্বপন কুমার দেব রতন, ব্যবসায়ী নিয়ামুল ইসলাম কমর, সরকারী চাকুরীজীবি রকিব উদ্দিন, আব্দুল মজিদ প্রমুখ।
স্মৃতি চারণ করেন বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র সচিব (সাবেক স্বরাষ্ট্র, বর্তমানে জ্বালানী ও বিদ্যুৎ মন্ত্রনালয়)  মোকাব্বির হোসেন বলেন- সিলেটের যুবশক্তি ভাগ্য ফেরানোর জন্য বিদেশে চলে যায়। কিন্তু কর্মমুখী শিক্ষা ও বিদেশী ভাষা শিখা না থাকায় তারা উপযুক্ত পারিশ্রমিক পায়না।
অথচ পার্শ্ববর্তী দেশের যুবশক্তি যথাযথ প্রশিক্ষণ নিয়ে যাওয়ায় তারা অনেক ভালো অবস্থানে কাজ করে ২-৩ গুণ বেশি রেমিটেন্স দেশে পাঠাচ্ছেন। তাই দেশ ও নিজের স্বার্থে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও ভাষা শিখে বিদেশে যাওয়ার আহ্বান জানান।
এনসি-(১৯৭৭-১৯৮২) ব্যাচের বন্ধু মেলায় অংশ গ্রহণ করেন, কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন, এডিশনাল এসপি দিপঙ্কর ঘোষ, এসি (ল্যান্ড) মেহেদী হাসান, কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী মাহমুদ।
এছাড়া মিলন মেলার ফাকে সিনিয়র সচিব মোকাব্বির হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন, এডিশনাল এসপি দিপঙ্কর ঘোষ, এসি (ল্যান্ড) মেহেদী হাসান, কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী মাহমুদ ক্যামেলিয়া ডানকান স্কুল পরিদর্শণ করেন। স্কুলের সার্বিক কার্যক্রম দেখে প্রশংসা করেন।
এই বন্ধু মেলায় প্রশাসনের বিভিন্ন পদ মর্যদার কর্মকর্তা, ভিন্ন ভিন্ন সেক্টরে কর্মরত বন্ধুরা স্ব-পরিবারে মিলিত হয়েছেন। দিনব্যাপি মিলন মেলায় দুপুরের খাবারের পর সঙ্গীত, নৃত্য পরিবেশন সঞ্জিব সিনহা,ঐন্দ্রিলা চাকলাদার, জাতীয় তরুণ সংঘের শিল্পী সৃষ্টি অধিকারী, আদিত্য দাশ হৃদয় প্রমুখ। পরে বন্ধুদের স্ত্রী ও সন্তানরা বিভিন্ন খেলায় অংশ গ্রহন করে পুরুস্কার লাভ করে। গোধূলী বেলায় মিলন মেলার সমাপ্তি টেনে স্ব-গৃহে ফিরে যান বন্ধুরা।

‘কর্মমুখী প্রশিক্ষণ ও বিদেশী ভাষা শিখে প্রবাসে যেতে হবে-সচিব মোকাব্বির

প্রকাশের সময় : ০৭:৫৬:০১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪
“আয় আর একটিবার আয়রে সখা, প্রাণের মাঝে আয়, মোরা সুখে দুখের কথা কব, প্রাণ জুড়াবে তায়” এনসি-(১৯৭৭-১৯৮২) বন্ধুদের দ্বিতীয় পুনর্মিলন ও আনন্দ ভ্রমণ-২০২৪ মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার নৈসর্গিক সৌন্দর্য মন্ডিত লংলা ভ্যালি ক্লাবে শুক্রবার ( ১লা মার্চ) অনুষ্ঠিত হয়।
সকাল ১০টায় যাত্রা শুরু করে লংলা ভ্যালি ক্লাবে পৌঁছে প্রথমে ফানুস ও পায়রা উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন বন্ধু বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র সচিব মোকাব্বির হোসেনসহ বন্ধুরা। চা চক্রের শেষে উন্মুক্ত স্মৃতি চারণ করেন সিনিয়র শিক্ষক বাবুল উদ্দিন খান, সাংবাদিক স্বপন কুমার দেব রতন, ব্যবসায়ী নিয়ামুল ইসলাম কমর, সরকারী চাকুরীজীবি রকিব উদ্দিন, আব্দুল মজিদ প্রমুখ।
স্মৃতি চারণ করেন বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র সচিব (সাবেক স্বরাষ্ট্র, বর্তমানে জ্বালানী ও বিদ্যুৎ মন্ত্রনালয়)  মোকাব্বির হোসেন বলেন- সিলেটের যুবশক্তি ভাগ্য ফেরানোর জন্য বিদেশে চলে যায়। কিন্তু কর্মমুখী শিক্ষা ও বিদেশী ভাষা শিখা না থাকায় তারা উপযুক্ত পারিশ্রমিক পায়না।
অথচ পার্শ্ববর্তী দেশের যুবশক্তি যথাযথ প্রশিক্ষণ নিয়ে যাওয়ায় তারা অনেক ভালো অবস্থানে কাজ করে ২-৩ গুণ বেশি রেমিটেন্স দেশে পাঠাচ্ছেন। তাই দেশ ও নিজের স্বার্থে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও ভাষা শিখে বিদেশে যাওয়ার আহ্বান জানান।
এনসি-(১৯৭৭-১৯৮২) ব্যাচের বন্ধু মেলায় অংশ গ্রহণ করেন, কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন, এডিশনাল এসপি দিপঙ্কর ঘোষ, এসি (ল্যান্ড) মেহেদী হাসান, কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী মাহমুদ।
এছাড়া মিলন মেলার ফাকে সিনিয়র সচিব মোকাব্বির হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন, এডিশনাল এসপি দিপঙ্কর ঘোষ, এসি (ল্যান্ড) মেহেদী হাসান, কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী মাহমুদ ক্যামেলিয়া ডানকান স্কুল পরিদর্শণ করেন। স্কুলের সার্বিক কার্যক্রম দেখে প্রশংসা করেন।
এই বন্ধু মেলায় প্রশাসনের বিভিন্ন পদ মর্যদার কর্মকর্তা, ভিন্ন ভিন্ন সেক্টরে কর্মরত বন্ধুরা স্ব-পরিবারে মিলিত হয়েছেন। দিনব্যাপি মিলন মেলায় দুপুরের খাবারের পর সঙ্গীত, নৃত্য পরিবেশন সঞ্জিব সিনহা,ঐন্দ্রিলা চাকলাদার, জাতীয় তরুণ সংঘের শিল্পী সৃষ্টি অধিকারী, আদিত্য দাশ হৃদয় প্রমুখ। পরে বন্ধুদের স্ত্রী ও সন্তানরা বিভিন্ন খেলায় অংশ গ্রহন করে পুরুস্কার লাভ করে। গোধূলী বেলায় মিলন মেলার সমাপ্তি টেনে স্ব-গৃহে ফিরে যান বন্ধুরা।