বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ আছে, দিতে হবে কর : এনবিআর চেয়ারম্যান

সিলেটে ২০২৪-২০২৫ অর্থবছরের প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন এনবিআর চেয়ারম্যান জনাব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। ছবি: আজকের পত্রিকা কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ আছে বলে জানিয়েছেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান জনাব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। তিনি বলেছেন, ‘আপনি মানি লন্ডারিং করবেন, ব্ল্যাক মানি করবেন আর বিনা ট্যাক্সে আপনাকে এলাউ করতে হবে, তাহলে তো সেটা হবে না। রাস্তা খোলা আছে। আপনি লব্ধ পরিশোধিত এই টাকাটা আপনি যথাযথ ট্যাক্স দিয়ে পরিশোধ করে দেন।’

২০২৪-২০২৫ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটকে সামনে রেখে সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও এনবিআরের যৌথ উদ্যোগে প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আজ শনিবার বিকেলে নগরের মির্জা জাঙ্গালে অবস্থিত হোটেল নির্ভানা ইন-এ সিলেট চেম্বারের সভাপতি তাহমিন আহমদের সভাপতিত্বে আলোচনায় এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘আপনারাই বলছেন মানি লন্ডারিং যাতে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যদি প্রশ্ন আসে প্রতিবছর, প্রতিবার, মাঝে মাঝে, প্রায়ই আমার কোনোভাবে যদি আমার ব্ল্যাক মানি হয়ে যায়, সেটাকে হালাল করতে দিতে হবে, হোয়াইট করতে দিতে হবে। তাহলে অনবরত ব্ল্যাক মানি হতেই থাকবে। সে জন্য আমরা এই ব্যবস্থা করতে পারি না।’

পাচারের অর্থ ও কালো টাকা কর ছাড়া সাদা হবে না জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘তবে আপনার জন্য সেই ব্যবস্থা আছে, সেই রাস্তা খোলা আছে। আপনি লব্ধ পরিশোধিত এই টাকাটা আপনি যথাযথ ট্যাক্স দিয়ে পরিশোধ করে দেন। কিন্তু আপনি মানি লন্ডারিং করবেন, ব্ল্যাক মানি করবেন আর বিনা ট্যাক্সে আপনাকে এলাউ করতে হবে, তাহলে তো সেটা হবে না। তাহলে তো কেউ আর ট্যাক্স দিবে না, সবাই বসে থাকবে।’

এনবিআর চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমাদের চিন্তায় আছে, করদাতাদের সরাসরি কিছু বেনিফিট বা সুবিধা কীভাবে দেওয়া যায়, যাতে করদাতারা কর দিতে আরও উদ্বুদ্ধ হয়, আগ্রহী হয়। যাতে একজন কর দেয় আর আরেকজন না দেয়, সেই জিনিসটা থাকবে না আমার দেশে। যখনই আমার একটা নাগরিক নম্বর থাকবে, তার অ্যাগেইনস্টে আমার একটা ট্যাক্স দেওয়ার সব থাকবে। যদি সেটাই একটা কনসেন্ট হয় যে, প্রত্যেকটা নাগরিক কর দিবে। কিছু না কিছু কর দিবে। কমবেশি কর দিবে। দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে কর দিতে হবে।’

করের টাকা জনস্বার্থে ব্যয় হয় উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘করের টাকা দিয়ে সরকার দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, রাস্তা-ঘাট নির্মাণ, শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবাসহ আপামর জনতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। করের টাকায় বয়স্ক-ভাতা, বিধবা-ভাতাসহ প্রায় ২৯ রকমের ভাতা জনগণকে দেওয়া হচ্ছে। ধনী দেশগুলোর কাছে হাত পেতে এখন আমাদের চলতে হয় না।’

করদাতাদের সহায়তার আত্মতৃপ্তি নিয়ে কর প্রদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘নিয়মিত করদাতাদের ওপর করের বোঝা না বাড়িয়ে করের আওতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। গত ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত যেখানে ২১ লক্ষ করদাতা আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছিলেন, সেখানে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত ৩৫ লক্ষ করদাতা রিটার্ন দাখিল করেছেন। ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত আয়কর রিটার্ন দাখিলকারীর সংখ্যা ৪০ লক্ষে উন্নীত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।’

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য গ্রেড-১ (কাস্টমস নীতি) মো. মাসুদ সাদিক বলেন, ‘আমরা আগামী বাজেটে বিলাসী পণ্য ও তামাকজাতীয় পণ্যে শুল্ক বৃদ্ধির পাশাপাশি মেডিকেল ইকুইপমেন্ট, ওষুধের কাঁচামাল ও কৃষিখাতে ব্যবহার্য সার, কীটনাশক ইত্যাদি আমদানিতে শুল্ক রেয়াত সুবিধা প্রদান করেছি।’

বোল্ডার স্টোনের অ্যাসেসমেন্ট ভ্যালু কমানো প্রসঙ্গে আমদানিকারকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চিপ স্টোন ও বোল্ডার স্টোনের এইচ. এস কোড আলাদা এবং চিপ স্টোন আমদানিতে সম্পূরক শুল্ক দিতে হয়, কিন্তু বোল্ডার স্টোন আমদানিতে কোনো সম্পূরক শুল্ক নেই।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর নীতি) এ কে এম বদিউল আলম বলেন, ‘আমরা করের পরিধি বৃদ্ধির মাধ্যমে করদাতাদের ওপর বোঝা লাঘব করার চেষ্টা করছি। ইতিমধ্যে ব্যক্তি করদাতার সর্বোচ্চ করের হার ৩০% থেকে ২৫% করা হয়েছে এবং করপোরেট ট্যাক্স হ্রাস করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও ব্যবসায়ী ও করদাতাদের সুবিধা-অসুবিধা বিবেচনা করে কর নীতি প্রণয়ন করা হবে।’

সমাপনী বক্তব্য রাখেন সিলেট চেম্বারের সভাপতি তাহমিন আহমদ। সভায় জাতীয় বাজেটের বিভিন্ন দিক নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য গ্রেড-১ (কাস্টমস নীতি) মো. মাসুদ সাদিক, প্রথম সচিব জনাব মোহাম্মদ হাসমত আলী ও দ্বিতীয় সচিব বাপন চন্দ্র দাস।

সভায় বক্তাগণ পণ্য আমদানি না হলে পরিশোধিত অগ্রিম ট্যাক্স সহজে ফেরত প্রদান অথবা পরবর্তীতে তা সমন্বয়করণ, কয়লা, পাথর ও চুনাপাথরের অ্যাসেসমেন্ট রেট ক্রয়মূল্যের ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ, কৃষি মেশিনারিজের খুচরা যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক হার হ্রাস করা, তাজা শাক-সবজি রপ্তানিতে প্রণোদনা বৃদ্ধি, টার্নওভার ট্যাক্স ও উৎসে কর হ্রাসকরণ, মফস্বল এলাকার ব্যবসায়ীদের করের আওতায় নিয়ে আসা, ব্যবসার স্থান স্থাপনার ক্ষেত্রে মূসকের হার কমানোসহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিলেট চেম্বারের পরিচালক এবং ভ্যাট, বাজেট, কর সাব কমিটির ডাইরেক্টর ইনচার্জ আবু তাহের মো. শোয়েব, নবনির্বাচিত সিনিয়র সহসভাপতি মো. এমদাদ হোসেন, পরিচালক মুজিবুর রহমান মিন্টু, আলীমুল এহছান চৌধুরী, মেট্রোপলিটন চেম্বারের পরিচালক রাজীব ভৌমিক, সিলেট জেলা কর আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, কর আইনজীবী মো. মাজাহারুল হক, মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন এফসিএ, অ্যাডভোকেট মো. আবুল ফজল, সিলেট চেম্বারের সদস্য মো. আবুল কালাম, মো. মোস্তাফিজুর রহমান, এস এম শায়েস্তা তালুকদার, কর আইনজীবী আবদুল আলীম পাঠান, হাসনু চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কর কমিশনার সৈয়দ জাকির হোসেন, কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট সিলেটের কমিশনার (চলতি দায়িত্ব) মুহাম্মদ রাশেদুল আলম, এনবিআরের প্রথম সচিব ও প্রধান বাজেট সমন্বয়ক এস এম সোহেল রহমান, সিলেট চেম্বারের নবনির্বাচিত সহ সভাপতি এহতেশামুল হক চৌধুরী, পরিচালক ওয়াহিদুজ্জামান চৌধুরী (রাজিব), দেবাংশু দাস, কাজী মো. মোস্তাফিজুর রহমান, মো. সারোয়ার হোসেন ছেদু, মো. মাহবুবুল হাফিজ চৌধুরী (মুসফিক), শান্ত দেব, মো. রিমাদ আহমদ রুবেল, মো. মাহদী সালেহীন, আরিফ হোসেন, সাবেক পরিচালক মো. আব্দুর রহমান, সদস্য আবদুল মালিক মারুফ, সিলেট চেম্বারের সচিব মো. গোলাম আক্তার ফারুক।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে কাস্টমস ও কর বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ, সিলেটের বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সিলেট চেম্বারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন কর অঞ্চল-সিলেট এর উপ কর কমিশনার মো. সালেকুল ইসলাম ও সিলেট চেম্বারের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মিনতি দেবী।

এর আগে সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে ‘উন্নয়নের জন্য রাজস্ব’ ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ‘প্রাক-বাজেট মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সিলেট বিভাগীয় অঞ্চলের সরকারি-বেসরকারি অংশীজন সহযোগে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জনাব দেবজিৎ সিংহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, লেখক, বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী নেতৃবৃন্দসহ সরকারি-বেসরকারি অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ আছে, দিতে হবে কর : এনবিআর চেয়ারম্যান

প্রকাশের সময় : ০৩:৪১:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪

সিলেটে ২০২৪-২০২৫ অর্থবছরের প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন এনবিআর চেয়ারম্যান জনাব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। ছবি: আজকের পত্রিকা কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ আছে বলে জানিয়েছেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান জনাব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। তিনি বলেছেন, ‘আপনি মানি লন্ডারিং করবেন, ব্ল্যাক মানি করবেন আর বিনা ট্যাক্সে আপনাকে এলাউ করতে হবে, তাহলে তো সেটা হবে না। রাস্তা খোলা আছে। আপনি লব্ধ পরিশোধিত এই টাকাটা আপনি যথাযথ ট্যাক্স দিয়ে পরিশোধ করে দেন।’

২০২৪-২০২৫ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটকে সামনে রেখে সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও এনবিআরের যৌথ উদ্যোগে প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আজ শনিবার বিকেলে নগরের মির্জা জাঙ্গালে অবস্থিত হোটেল নির্ভানা ইন-এ সিলেট চেম্বারের সভাপতি তাহমিন আহমদের সভাপতিত্বে আলোচনায় এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘আপনারাই বলছেন মানি লন্ডারিং যাতে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যদি প্রশ্ন আসে প্রতিবছর, প্রতিবার, মাঝে মাঝে, প্রায়ই আমার কোনোভাবে যদি আমার ব্ল্যাক মানি হয়ে যায়, সেটাকে হালাল করতে দিতে হবে, হোয়াইট করতে দিতে হবে। তাহলে অনবরত ব্ল্যাক মানি হতেই থাকবে। সে জন্য আমরা এই ব্যবস্থা করতে পারি না।’

পাচারের অর্থ ও কালো টাকা কর ছাড়া সাদা হবে না জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘তবে আপনার জন্য সেই ব্যবস্থা আছে, সেই রাস্তা খোলা আছে। আপনি লব্ধ পরিশোধিত এই টাকাটা আপনি যথাযথ ট্যাক্স দিয়ে পরিশোধ করে দেন। কিন্তু আপনি মানি লন্ডারিং করবেন, ব্ল্যাক মানি করবেন আর বিনা ট্যাক্সে আপনাকে এলাউ করতে হবে, তাহলে তো সেটা হবে না। তাহলে তো কেউ আর ট্যাক্স দিবে না, সবাই বসে থাকবে।’

এনবিআর চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমাদের চিন্তায় আছে, করদাতাদের সরাসরি কিছু বেনিফিট বা সুবিধা কীভাবে দেওয়া যায়, যাতে করদাতারা কর দিতে আরও উদ্বুদ্ধ হয়, আগ্রহী হয়। যাতে একজন কর দেয় আর আরেকজন না দেয়, সেই জিনিসটা থাকবে না আমার দেশে। যখনই আমার একটা নাগরিক নম্বর থাকবে, তার অ্যাগেইনস্টে আমার একটা ট্যাক্স দেওয়ার সব থাকবে। যদি সেটাই একটা কনসেন্ট হয় যে, প্রত্যেকটা নাগরিক কর দিবে। কিছু না কিছু কর দিবে। কমবেশি কর দিবে। দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে কর দিতে হবে।’

করের টাকা জনস্বার্থে ব্যয় হয় উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘করের টাকা দিয়ে সরকার দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, রাস্তা-ঘাট নির্মাণ, শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবাসহ আপামর জনতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। করের টাকায় বয়স্ক-ভাতা, বিধবা-ভাতাসহ প্রায় ২৯ রকমের ভাতা জনগণকে দেওয়া হচ্ছে। ধনী দেশগুলোর কাছে হাত পেতে এখন আমাদের চলতে হয় না।’

করদাতাদের সহায়তার আত্মতৃপ্তি নিয়ে কর প্রদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘নিয়মিত করদাতাদের ওপর করের বোঝা না বাড়িয়ে করের আওতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। গত ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত যেখানে ২১ লক্ষ করদাতা আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছিলেন, সেখানে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত ৩৫ লক্ষ করদাতা রিটার্ন দাখিল করেছেন। ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত আয়কর রিটার্ন দাখিলকারীর সংখ্যা ৪০ লক্ষে উন্নীত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।’

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য গ্রেড-১ (কাস্টমস নীতি) মো. মাসুদ সাদিক বলেন, ‘আমরা আগামী বাজেটে বিলাসী পণ্য ও তামাকজাতীয় পণ্যে শুল্ক বৃদ্ধির পাশাপাশি মেডিকেল ইকুইপমেন্ট, ওষুধের কাঁচামাল ও কৃষিখাতে ব্যবহার্য সার, কীটনাশক ইত্যাদি আমদানিতে শুল্ক রেয়াত সুবিধা প্রদান করেছি।’

বোল্ডার স্টোনের অ্যাসেসমেন্ট ভ্যালু কমানো প্রসঙ্গে আমদানিকারকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চিপ স্টোন ও বোল্ডার স্টোনের এইচ. এস কোড আলাদা এবং চিপ স্টোন আমদানিতে সম্পূরক শুল্ক দিতে হয়, কিন্তু বোল্ডার স্টোন আমদানিতে কোনো সম্পূরক শুল্ক নেই।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর নীতি) এ কে এম বদিউল আলম বলেন, ‘আমরা করের পরিধি বৃদ্ধির মাধ্যমে করদাতাদের ওপর বোঝা লাঘব করার চেষ্টা করছি। ইতিমধ্যে ব্যক্তি করদাতার সর্বোচ্চ করের হার ৩০% থেকে ২৫% করা হয়েছে এবং করপোরেট ট্যাক্স হ্রাস করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও ব্যবসায়ী ও করদাতাদের সুবিধা-অসুবিধা বিবেচনা করে কর নীতি প্রণয়ন করা হবে।’

সমাপনী বক্তব্য রাখেন সিলেট চেম্বারের সভাপতি তাহমিন আহমদ। সভায় জাতীয় বাজেটের বিভিন্ন দিক নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য গ্রেড-১ (কাস্টমস নীতি) মো. মাসুদ সাদিক, প্রথম সচিব জনাব মোহাম্মদ হাসমত আলী ও দ্বিতীয় সচিব বাপন চন্দ্র দাস।

সভায় বক্তাগণ পণ্য আমদানি না হলে পরিশোধিত অগ্রিম ট্যাক্স সহজে ফেরত প্রদান অথবা পরবর্তীতে তা সমন্বয়করণ, কয়লা, পাথর ও চুনাপাথরের অ্যাসেসমেন্ট রেট ক্রয়মূল্যের ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ, কৃষি মেশিনারিজের খুচরা যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক হার হ্রাস করা, তাজা শাক-সবজি রপ্তানিতে প্রণোদনা বৃদ্ধি, টার্নওভার ট্যাক্স ও উৎসে কর হ্রাসকরণ, মফস্বল এলাকার ব্যবসায়ীদের করের আওতায় নিয়ে আসা, ব্যবসার স্থান স্থাপনার ক্ষেত্রে মূসকের হার কমানোসহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিলেট চেম্বারের পরিচালক এবং ভ্যাট, বাজেট, কর সাব কমিটির ডাইরেক্টর ইনচার্জ আবু তাহের মো. শোয়েব, নবনির্বাচিত সিনিয়র সহসভাপতি মো. এমদাদ হোসেন, পরিচালক মুজিবুর রহমান মিন্টু, আলীমুল এহছান চৌধুরী, মেট্রোপলিটন চেম্বারের পরিচালক রাজীব ভৌমিক, সিলেট জেলা কর আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, কর আইনজীবী মো. মাজাহারুল হক, মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন এফসিএ, অ্যাডভোকেট মো. আবুল ফজল, সিলেট চেম্বারের সদস্য মো. আবুল কালাম, মো. মোস্তাফিজুর রহমান, এস এম শায়েস্তা তালুকদার, কর আইনজীবী আবদুল আলীম পাঠান, হাসনু চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কর কমিশনার সৈয়দ জাকির হোসেন, কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট সিলেটের কমিশনার (চলতি দায়িত্ব) মুহাম্মদ রাশেদুল আলম, এনবিআরের প্রথম সচিব ও প্রধান বাজেট সমন্বয়ক এস এম সোহেল রহমান, সিলেট চেম্বারের নবনির্বাচিত সহ সভাপতি এহতেশামুল হক চৌধুরী, পরিচালক ওয়াহিদুজ্জামান চৌধুরী (রাজিব), দেবাংশু দাস, কাজী মো. মোস্তাফিজুর রহমান, মো. সারোয়ার হোসেন ছেদু, মো. মাহবুবুল হাফিজ চৌধুরী (মুসফিক), শান্ত দেব, মো. রিমাদ আহমদ রুবেল, মো. মাহদী সালেহীন, আরিফ হোসেন, সাবেক পরিচালক মো. আব্দুর রহমান, সদস্য আবদুল মালিক মারুফ, সিলেট চেম্বারের সচিব মো. গোলাম আক্তার ফারুক।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে কাস্টমস ও কর বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ, সিলেটের বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সিলেট চেম্বারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন কর অঞ্চল-সিলেট এর উপ কর কমিশনার মো. সালেকুল ইসলাম ও সিলেট চেম্বারের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মিনতি দেবী।

এর আগে সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে ‘উন্নয়নের জন্য রাজস্ব’ ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ‘প্রাক-বাজেট মতবিনিময় সভা’ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সিলেট বিভাগীয় অঞ্চলের সরকারি-বেসরকারি অংশীজন সহযোগে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জনাব দেবজিৎ সিংহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, লেখক, বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী নেতৃবৃন্দসহ সরকারি-বেসরকারি অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।