বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘর গুছিয়ে রাখার কয়েকটি উপায়

ব্যক্তিজীবনে আগাগোড়া ছন্নছাড়া মানুষের ঘরটিও পরিপাটি থাকতে পারে। আবার নিজে খুব ফিটফাট থাকা মানুষটিও ঘর গোছানোর বেলায় হতে পারেন একেবারেই উদাসীন। যারা ঘরটা অপরিষ্কার রাখেন তারা মনে করেন ঘর গোছানো অনেক কষ্টের কাজ। হ্যাঁ, একটুতো কঠিনই। তবে কঠিনকে সহজ করার উপায় আছে। কয়েকটি উপায় মেনে ঘর গুছিয়ে রাখুন।

লন্ড্রি ব্যাগ বা ঝুড়ি: ময়লা জামা-কাপড় বাসায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকলে ঘরটা বেশি আগোছালো মনে হয়। তাই অপরিষ্কার কাপড়গুলো লন্ড্রি ব্যাগ বা ঝুড়িতে রাখুন। অবশ্যই ব্যাগটা ঘরের কোনায় রাখবেন।

জুতার র‌্যাক: জুতাগুলো গুছিয়ে রাখার জন্য দরজার পাশেই একটি র‌্যাক রাখতে পারেন। ওই র‌্যাকের ওপরে রাখতে পারেন ইনডোর প্ল্যান্ট।

হ্যাঙার আর হুক: দরজার পেছনে বা ঘরের কোনো লুকনো কোনায় হুক বা হ্যাঙার লাগিয়ে নিন। বাইরে থেকে বাসায় ফিরে ব্যাগ, জামা, ছাতা হ্যাঙার বা হুকে ঝুলিয়ে রাখুন।

বাক্স বা ড্রয়ার: প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুছিয়ে রাখার জন্য আলাদা একটা বাক্স বা ড্রয়ার ব্যবহার করুন। বাক্স বা ড্রয়ারে যাবতীয় ওষুধ ও জরুরি জিনিস গুছিয়ে রাখুন।

কুশন: সুদৃশ্য কুশন কভারের ভেতরে মশারি গুছিয়ে রাখতে পারেন।

বিছানা পরিষ্কার রাখুন: প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে সময় নষ্ট না করে প্রথমেই বিছানা গুছিয়ে ফেলুন। সপ্তাহে কমপক্ষে একবার বালিশের কভার, বিছানার চাদর ধুয়ে ফেলবেন।

যদি ঘরটা পরিপাটি রাখার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন তাহলে কাজটি আপনার কাছে আনন্দের হয়ে উঠবে। ঘর গুছিয়ে রাখলে মনও ভালো থাকে। তাই প্রতিদিনের কাজের মধ্যে ঘর গুছিয়ে রাখাটাও যোগ করুন।

ঘর গুছিয়ে রাখার কয়েকটি উপায়

প্রকাশের সময় : ০৫:০৫:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪

ব্যক্তিজীবনে আগাগোড়া ছন্নছাড়া মানুষের ঘরটিও পরিপাটি থাকতে পারে। আবার নিজে খুব ফিটফাট থাকা মানুষটিও ঘর গোছানোর বেলায় হতে পারেন একেবারেই উদাসীন। যারা ঘরটা অপরিষ্কার রাখেন তারা মনে করেন ঘর গোছানো অনেক কষ্টের কাজ। হ্যাঁ, একটুতো কঠিনই। তবে কঠিনকে সহজ করার উপায় আছে। কয়েকটি উপায় মেনে ঘর গুছিয়ে রাখুন।

লন্ড্রি ব্যাগ বা ঝুড়ি: ময়লা জামা-কাপড় বাসায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকলে ঘরটা বেশি আগোছালো মনে হয়। তাই অপরিষ্কার কাপড়গুলো লন্ড্রি ব্যাগ বা ঝুড়িতে রাখুন। অবশ্যই ব্যাগটা ঘরের কোনায় রাখবেন।

জুতার র‌্যাক: জুতাগুলো গুছিয়ে রাখার জন্য দরজার পাশেই একটি র‌্যাক রাখতে পারেন। ওই র‌্যাকের ওপরে রাখতে পারেন ইনডোর প্ল্যান্ট।

হ্যাঙার আর হুক: দরজার পেছনে বা ঘরের কোনো লুকনো কোনায় হুক বা হ্যাঙার লাগিয়ে নিন। বাইরে থেকে বাসায় ফিরে ব্যাগ, জামা, ছাতা হ্যাঙার বা হুকে ঝুলিয়ে রাখুন।

বাক্স বা ড্রয়ার: প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুছিয়ে রাখার জন্য আলাদা একটা বাক্স বা ড্রয়ার ব্যবহার করুন। বাক্স বা ড্রয়ারে যাবতীয় ওষুধ ও জরুরি জিনিস গুছিয়ে রাখুন।

কুশন: সুদৃশ্য কুশন কভারের ভেতরে মশারি গুছিয়ে রাখতে পারেন।

বিছানা পরিষ্কার রাখুন: প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে সময় নষ্ট না করে প্রথমেই বিছানা গুছিয়ে ফেলুন। সপ্তাহে কমপক্ষে একবার বালিশের কভার, বিছানার চাদর ধুয়ে ফেলবেন।

যদি ঘরটা পরিপাটি রাখার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারেন তাহলে কাজটি আপনার কাছে আনন্দের হয়ে উঠবে। ঘর গুছিয়ে রাখলে মনও ভালো থাকে। তাই প্রতিদিনের কাজের মধ্যে ঘর গুছিয়ে রাখাটাও যোগ করুন।