মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার: সাঈদ খোকন

ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের দাম এখন কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে আমাদের কষ্ট হচ্ছে। জিনিসপত্রের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে রাখতে চেষ্টা করে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তাঁর চেষ্টার কোনো কমতি নেই।

শুক্রবার (২২ মার্চ) বিকেলে পুরান ঢাকার নারিন্দার মশুরীখোলা দরবার শরীফের সামনে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত দুস্থ, অসহায় ও গরীব পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী  বিতরণ কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মোহাম্মদ সাঈদ খোকন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, জিনিসপত্রের দাম যাতে নাগালের মধ্যে থাকে সেজন্য নেত্রী চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সেজন্য প্রত্যেক এলাকার মতো এই ওয়ার্ডেও টিসিবির কার্ড দেওয়া হয়েছে, যাতে স্বল্প আয়ের মানুষ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য অল্প মূল্যে পেতে পারেন। আপনারা প্রধানমন্ত্রীর সাথে থাকলে-পাশে থাকলে তিনি এবারও সফল হবেন, আপনাদের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে সবকিছু নিয়ে আসতে পারবেন ইনশাআল্লাহ। এজন্য আমাদের সবার সাহায্য-সহযোগীতা প্রয়োজন। আমরা সবাই মিলেই এই দেশ, এই প্রিয় শহরটাকে গড়ে তুলবো। আমরা শেখ হাসিনার কর্মীরা তাঁর নির্দেশে আপনাদের পাশে থাকবো, সাথে থাকবো। আপনারা সাত জানুয়ারী আমাকে বিপুল ভোটে জয়ী করে সংসদ সদস্য বানিয়েছেন, আমি পাঁচ বছর আপনাদের সেবক হিসেবে সেবা দিবো ইনশাআল্লাহ।

এসময় তিনি আরও বলেন, বাংলোদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। উন্নয়নের স্রোতধারায় সমগ্র বাংলাদেশে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশের মূল কারীগর জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বিশ বছর পূর্বের ঢাকা শহর এবং বর্তমানের ঢাকার মধ্যে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। জীবনমানের অনেক উন্নয়ন হয়েছে। ঢাকা শহরের সর্বত্র উন্নয়ন-অগ্রগতি দেখতে পাবেন। পদ্মা সেতু, নতুন এয়ারপোর্ট, আধুনিক ফ্লাইওভার, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসহ অনেক উন্নয়ন হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী পুরান ঢাকার মানুষকে ভালোবাসেন উল্লেখ করে ঢাকার সাবেক মেয়র বলেন, আমি মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে যখনি কোন কাজের জন্য যেতাম নেত্রী সঙ্গে সঙ্গে করে দিতেন। এই শহরে আগে রাস্তাঘাটে নিভু নিভু আলো ছিলো, অনেক সময় তা জ্বলতো না। নেত্রী এই শহরের মানুষকে এলইডি লাইটের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। রাস্তাঘাটের জন্য যখনি গিয়েছি নেত্রী তা করে দিয়েছেন। এখনো কোনো সমস্যা থাকলে আমাদের জানালে আমরা সবাই মিলে তা সমাধান করবো। সরকারের সহায়তা সবসময় আপনাদের সাথে আছে। এদিন ছয়শ’ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন।

এ সময় অন্যান্যদের মাঝে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, সদস্য মো. আইয়ুব আলী খান, ৪০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদসহ মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের বোর্ড সদস্য এবং বিভিন্ন ওয়ার্ডের সদস্যগণ এবং নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।###

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার: সাঈদ খোকন

প্রকাশের সময় : ০৭:৫৬:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০২৪

ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের দাম এখন কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে আমাদের কষ্ট হচ্ছে। জিনিসপত্রের দাম সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে রাখতে চেষ্টা করে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তাঁর চেষ্টার কোনো কমতি নেই।

শুক্রবার (২২ মার্চ) বিকেলে পুরান ঢাকার নারিন্দার মশুরীখোলা দরবার শরীফের সামনে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত দুস্থ, অসহায় ও গরীব পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী  বিতরণ কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মোহাম্মদ সাঈদ খোকন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, জিনিসপত্রের দাম যাতে নাগালের মধ্যে থাকে সেজন্য নেত্রী চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সেজন্য প্রত্যেক এলাকার মতো এই ওয়ার্ডেও টিসিবির কার্ড দেওয়া হয়েছে, যাতে স্বল্প আয়ের মানুষ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য অল্প মূল্যে পেতে পারেন। আপনারা প্রধানমন্ত্রীর সাথে থাকলে-পাশে থাকলে তিনি এবারও সফল হবেন, আপনাদের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে সবকিছু নিয়ে আসতে পারবেন ইনশাআল্লাহ। এজন্য আমাদের সবার সাহায্য-সহযোগীতা প্রয়োজন। আমরা সবাই মিলেই এই দেশ, এই প্রিয় শহরটাকে গড়ে তুলবো। আমরা শেখ হাসিনার কর্মীরা তাঁর নির্দেশে আপনাদের পাশে থাকবো, সাথে থাকবো। আপনারা সাত জানুয়ারী আমাকে বিপুল ভোটে জয়ী করে সংসদ সদস্য বানিয়েছেন, আমি পাঁচ বছর আপনাদের সেবক হিসেবে সেবা দিবো ইনশাআল্লাহ।

এসময় তিনি আরও বলেন, বাংলোদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। উন্নয়নের স্রোতধারায় সমগ্র বাংলাদেশে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশের মূল কারীগর জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বিশ বছর পূর্বের ঢাকা শহর এবং বর্তমানের ঢাকার মধ্যে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। জীবনমানের অনেক উন্নয়ন হয়েছে। ঢাকা শহরের সর্বত্র উন্নয়ন-অগ্রগতি দেখতে পাবেন। পদ্মা সেতু, নতুন এয়ারপোর্ট, আধুনিক ফ্লাইওভার, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসহ অনেক উন্নয়ন হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী পুরান ঢাকার মানুষকে ভালোবাসেন উল্লেখ করে ঢাকার সাবেক মেয়র বলেন, আমি মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে যখনি কোন কাজের জন্য যেতাম নেত্রী সঙ্গে সঙ্গে করে দিতেন। এই শহরে আগে রাস্তাঘাটে নিভু নিভু আলো ছিলো, অনেক সময় তা জ্বলতো না। নেত্রী এই শহরের মানুষকে এলইডি লাইটের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। রাস্তাঘাটের জন্য যখনি গিয়েছি নেত্রী তা করে দিয়েছেন। এখনো কোনো সমস্যা থাকলে আমাদের জানালে আমরা সবাই মিলে তা সমাধান করবো। সরকারের সহায়তা সবসময় আপনাদের সাথে আছে। এদিন ছয়শ’ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন।

এ সময় অন্যান্যদের মাঝে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, সদস্য মো. আইয়ুব আলী খান, ৪০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদসহ মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের বোর্ড সদস্য এবং বিভিন্ন ওয়ার্ডের সদস্যগণ এবং নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।###