মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাবির কোয়ার্টার থেকে ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার

নিহত বিনতে মোশারেফ। ছবি-সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক কোয়ার্টার থেকে আদ্রিতা বিনতে মোশারেফ (২১) নামে এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ঢাবির মার্কেটিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী।

রবিবার (৩১ মার্চ) ভোরে দক্ষিণ ফুলার রোডের ১৯ নম্বর ভবনের তৃতীয় তলা থেকে তার এ মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিলে চিকিৎসক সকাল সাড়ে ৭টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুস্তাজিরুর রহমান জানান, খবর পেয়ে ভোরে ফুলার রোডের আবাসিক কোয়ার্টারের ঐ বাসায় গিয়ে দেখা যায়, বিছানায় শায়িত অবস্থায় রয়েছেন ঐ শিক্ষার্থী। পরিবারের কাছ থেকে জানা যায়, ফ্যানের সঙ্গে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছিলেন তিনি।

পরবর্তীতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ওসি আরো জানান, কী কারণে ঐ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন সে বিষয়ে পরিবার তেমন কিছুই জানাতে পারেনি। ঘটনার বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে। মরদেহটি ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে রাখা হয়েছে।

আদ্রিতার স্বজন ও সহপাঠীরা জানান, তার বাড়ি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার মজলিশপুর গ্রামে। আদ্রিতার বাবা অধ্যাপক ড. মোশারফ হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষক। বাবা-মায়ের সঙ্গেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে থাকতেন তিনি।

ঢাবির কোয়ার্টার থেকে ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশের সময় : ১১:২৩:৩১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩১ মার্চ ২০২৪

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক কোয়ার্টার থেকে আদ্রিতা বিনতে মোশারেফ (২১) নামে এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ঢাবির মার্কেটিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী।

রবিবার (৩১ মার্চ) ভোরে দক্ষিণ ফুলার রোডের ১৯ নম্বর ভবনের তৃতীয় তলা থেকে তার এ মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিলে চিকিৎসক সকাল সাড়ে ৭টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুস্তাজিরুর রহমান জানান, খবর পেয়ে ভোরে ফুলার রোডের আবাসিক কোয়ার্টারের ঐ বাসায় গিয়ে দেখা যায়, বিছানায় শায়িত অবস্থায় রয়েছেন ঐ শিক্ষার্থী। পরিবারের কাছ থেকে জানা যায়, ফ্যানের সঙ্গে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছিলেন তিনি।

পরবর্তীতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ওসি আরো জানান, কী কারণে ঐ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন সে বিষয়ে পরিবার তেমন কিছুই জানাতে পারেনি। ঘটনার বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে। মরদেহটি ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে রাখা হয়েছে।

আদ্রিতার স্বজন ও সহপাঠীরা জানান, তার বাড়ি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার মজলিশপুর গ্রামে। আদ্রিতার বাবা অধ্যাপক ড. মোশারফ হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষক। বাবা-মায়ের সঙ্গেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে থাকতেন তিনি।