বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতের রুপির দাম কমেছে ডলারের বিপরীতে

আবারও যুক্তরাষ্ট্রের ডলারের বিপরীতে ভারতের মুদ্রা রুপির দাম কমেছে। এ নিয়ে এক কার্যদিবসের পরই মুদ্রাটির দরপতন ঘটলো। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে বিজনেস রেকর্ডারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এতে বলা হয়, ইউএস কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ (ফেড) সুদের হার কমাতে বিলম্ব করতে পারে। ফলে দেশটির মুদ্রা ডলারের মান বেড়েছে। সেই সঙ্গে মার্কিন বন্ড ইল্ড ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। এছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সঙ্গে এশিয়ার অন্যান্য মুদ্রার মূল্য হ্রাস পেয়েছে। ফলে ভারতীয় রুপির অবমূল্যায়ন ঘটেছে।

এই প্রেক্ষাপটে শুক্রবার (১২ এপ্রিল) প্রতি ডলার বিক্রি বিক্রি হয়েছে ৮৩ দশমিক ৩৯৫০ রুপিতে। আগের কার্যদিবসে (বুধবার) যা ছিল ৮৩ দশমিক ১৮৫০ রুপি। বৃহস্পতিবার ভারতীয় আর্থিক বাজার বন্ধ ছিল। সেই হিসাবে একদিনের ব্যবধানে ভারতীয় রুপির দর কমেছে শূন্য দশমিক ২ শতাংশ।

মঙ্গলবারও ভারতের ফিন্যান্সিয়াল মার্কেট বন্ধ ছিল। সোমবার অবশ্য খোলা ছিল। সেদিন ডলারপ্রতি দর ছিল ৮৩ দশমিক ৩১৫০ রুপি। পরের কর্মদিবসে গ্রিনব্যাকের বিপরীতে ভারতীয় রুপির দাম বেড়েছিল। তবে একদিন পরই আবার সেটির অবনমন ঘটলো।

ভারতের রুপির দাম কমেছে ডলারের বিপরীতে

প্রকাশের সময় : ০৬:১৭:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪

আবারও যুক্তরাষ্ট্রের ডলারের বিপরীতে ভারতের মুদ্রা রুপির দাম কমেছে। এ নিয়ে এক কার্যদিবসের পরই মুদ্রাটির দরপতন ঘটলো। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে বিজনেস রেকর্ডারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এতে বলা হয়, ইউএস কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ (ফেড) সুদের হার কমাতে বিলম্ব করতে পারে। ফলে দেশটির মুদ্রা ডলারের মান বেড়েছে। সেই সঙ্গে মার্কিন বন্ড ইল্ড ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। এছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সঙ্গে এশিয়ার অন্যান্য মুদ্রার মূল্য হ্রাস পেয়েছে। ফলে ভারতীয় রুপির অবমূল্যায়ন ঘটেছে।

এই প্রেক্ষাপটে শুক্রবার (১২ এপ্রিল) প্রতি ডলার বিক্রি বিক্রি হয়েছে ৮৩ দশমিক ৩৯৫০ রুপিতে। আগের কার্যদিবসে (বুধবার) যা ছিল ৮৩ দশমিক ১৮৫০ রুপি। বৃহস্পতিবার ভারতীয় আর্থিক বাজার বন্ধ ছিল। সেই হিসাবে একদিনের ব্যবধানে ভারতীয় রুপির দর কমেছে শূন্য দশমিক ২ শতাংশ।

মঙ্গলবারও ভারতের ফিন্যান্সিয়াল মার্কেট বন্ধ ছিল। সোমবার অবশ্য খোলা ছিল। সেদিন ডলারপ্রতি দর ছিল ৮৩ দশমিক ৩১৫০ রুপি। পরের কর্মদিবসে গ্রিনব্যাকের বিপরীতে ভারতীয় রুপির দাম বেড়েছিল। তবে একদিন পরই আবার সেটির অবনমন ঘটলো।