মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাত পোহালেই পহেলা বৈশাখ,ইলিশের দাম চড়া

রাত পোহালেই উদযাপন করা হবে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। এই মহোৎসবে যোগ দেবে সারাদেশ। প্রকৃতপক্ষে পহেলা বৈশাখ শুধু আমাদের একার উৎসব নয়। গোটা অঞ্চলেই বৈশাখ উদযাপিত হয়। আমরা নিজস্ব সংস্কৃতির কথা বলি, সেটার সঙ্গে প্রকৃতির সংলগ্নতা রয়েছে। এটাই আমাদের সংস্কৃতির অন্যতম উপাদান।
বৈশাখের সকালে ইলিশ দিয়ে পান্তা খাওয়ার যে আয়োজন চলে। এই উৎসব ঘিরে ইলিশের বাড়তি চাহিদা থাকে। বর্তমানে ইলিশ ধরা পড়ছে কম, বাজারে এর সরবরাহও কমেছে। খুচরা বাজারেই ইলিশের দাম বাড়তি।
শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে জাটকা ও ১ কেজির কম ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। বড় ইলিশ নেই বললেই চলে। প্রতিকেজি জাটকা বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকায়। ৭০০ গ্রাম ইলিশ ১২০০-১৩০০ টাকা, আর ১০০০ হাজার টাকায় মিলছে ৫৫০-৬০০ গ্রাম ইলিশ। ছোট চিংড়ি প্রতিকেজি ৬০০-৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছেন, এখন শুকনো মৌসুম। নদীতে পানি কম থাকায় ইলিশ খুব কম ধরা পড়ছে। তাই, দাম বেশি।

রাত পোহালেই পহেলা বৈশাখ,ইলিশের দাম চড়া

প্রকাশের সময় : ০৩:৪২:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

রাত পোহালেই উদযাপন করা হবে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ। এই মহোৎসবে যোগ দেবে সারাদেশ। প্রকৃতপক্ষে পহেলা বৈশাখ শুধু আমাদের একার উৎসব নয়। গোটা অঞ্চলেই বৈশাখ উদযাপিত হয়। আমরা নিজস্ব সংস্কৃতির কথা বলি, সেটার সঙ্গে প্রকৃতির সংলগ্নতা রয়েছে। এটাই আমাদের সংস্কৃতির অন্যতম উপাদান।
বৈশাখের সকালে ইলিশ দিয়ে পান্তা খাওয়ার যে আয়োজন চলে। এই উৎসব ঘিরে ইলিশের বাড়তি চাহিদা থাকে। বর্তমানে ইলিশ ধরা পড়ছে কম, বাজারে এর সরবরাহও কমেছে। খুচরা বাজারেই ইলিশের দাম বাড়তি।
শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে জাটকা ও ১ কেজির কম ইলিশ বিক্রি হচ্ছে। বড় ইলিশ নেই বললেই চলে। প্রতিকেজি জাটকা বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকায়। ৭০০ গ্রাম ইলিশ ১২০০-১৩০০ টাকা, আর ১০০০ হাজার টাকায় মিলছে ৫৫০-৬০০ গ্রাম ইলিশ। ছোট চিংড়ি প্রতিকেজি ৬০০-৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছেন, এখন শুকনো মৌসুম। নদীতে পানি কম থাকায় ইলিশ খুব কম ধরা পড়ছে। তাই, দাম বেশি।