মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ওমানে রাউজানের যুবকের আত্মহত্যা, মরদেহ উদ্ধার

নিশাত রিমন ওরফে বাবু

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে নিশাত রিমন ওরফে বাবু নামে রাউজানের এক যুবক আত্মহত্যা করেছে। রবিবার (১৪ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় ওমানস্থ সোহারের একটি শয়নকক্ষ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে দেশটির পুলিশ।
সে দেশের পুলিশ জানায়, বাংলাদেশী যুবক আত্মহত্যা করেছে। লাশটি উদ্ধার করে হিমাগারে রাখা হয়েছে। আত্মহননকারী বাবু চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার পূর্বগুজরা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বড় ঠাকুর পাড়া গ্রামের কোরআন মঞ্জিল বাড়ির প্রয়াত মোজাহের হোসেনের ছেলে।
জানা যায়, গত তিন চার বছর আগে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে পাড়ি জমান বাবু। থাকতেন ওমানের সোহারে, কর্মরত ছিলেন ওমানের মক্কা শপিং সেন্টারের একটি কোম্পানিতে। দুই বোনকে বিয়ে দেওয়ার পর গত দেড় বছর আগে দেশে ফিরে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন বাবু। বিয়ের পর পুনরায় ওমানে চলে যান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. খালেক বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে বাবু আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। মরদেহ দেশে আনার চেষ্টা চলছে।
এদিকে এসব অস্বভাবিক মৃত্যু সম্পর্কে মধ্যপ্রচ্যের বিভিন্ন দেশে থাকা প্রবাসীরা জানান, পারিবারিক চাপ প্রয়োগের কারণে বেশি মৃত্যুর সমুক্ষিন হচ্ছে প্রবাসীরা। পরিবারের নানান আবদার মিটাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।  পারিবারিক বিভিন্ন কলহ নিয়ে প্রতিনিয়ত টেনশনে পড়তে হয় প্রবাসীদের। তার সাথে রয়েছে ভিসাসহ কর্মসংস্থানের ঝামেলাও। পাশাপাশি ঋনের চাপ সইতে না পেরে মৃত্যুর পথ বেচে নিচ্ছে কেউ কেউ, আবার অনেকেই মারা যাচ্ছে স্ট্রোকে। কেউবা বিভিন্ন চিন্তা মাথায় নিয়ে সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যুতে প্রাণ হারাচ্ছে। এসব মৃত্যুর জন্য অনেকেই পরিবারের অতি বিলাসিতাকেও দায়ী করছেন। এসব মৃত্যু রুখতে পারিবারিক চাপ প্রয়োগ বন্ধ করার বিকল্প নেই বলে জানান প্রবাসীরা।

ওমানে রাউজানের যুবকের আত্মহত্যা, মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশের সময় : ০৭:৩৬:০০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে নিশাত রিমন ওরফে বাবু নামে রাউজানের এক যুবক আত্মহত্যা করেছে। রবিবার (১৪ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় ওমানস্থ সোহারের একটি শয়নকক্ষ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে দেশটির পুলিশ।
সে দেশের পুলিশ জানায়, বাংলাদেশী যুবক আত্মহত্যা করেছে। লাশটি উদ্ধার করে হিমাগারে রাখা হয়েছে। আত্মহননকারী বাবু চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার পূর্বগুজরা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বড় ঠাকুর পাড়া গ্রামের কোরআন মঞ্জিল বাড়ির প্রয়াত মোজাহের হোসেনের ছেলে।
জানা যায়, গত তিন চার বছর আগে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে পাড়ি জমান বাবু। থাকতেন ওমানের সোহারে, কর্মরত ছিলেন ওমানের মক্কা শপিং সেন্টারের একটি কোম্পানিতে। দুই বোনকে বিয়ে দেওয়ার পর গত দেড় বছর আগে দেশে ফিরে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন বাবু। বিয়ের পর পুনরায় ওমানে চলে যান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. খালেক বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে বাবু আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। মরদেহ দেশে আনার চেষ্টা চলছে।
এদিকে এসব অস্বভাবিক মৃত্যু সম্পর্কে মধ্যপ্রচ্যের বিভিন্ন দেশে থাকা প্রবাসীরা জানান, পারিবারিক চাপ প্রয়োগের কারণে বেশি মৃত্যুর সমুক্ষিন হচ্ছে প্রবাসীরা। পরিবারের নানান আবদার মিটাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।  পারিবারিক বিভিন্ন কলহ নিয়ে প্রতিনিয়ত টেনশনে পড়তে হয় প্রবাসীদের। তার সাথে রয়েছে ভিসাসহ কর্মসংস্থানের ঝামেলাও। পাশাপাশি ঋনের চাপ সইতে না পেরে মৃত্যুর পথ বেচে নিচ্ছে কেউ কেউ, আবার অনেকেই মারা যাচ্ছে স্ট্রোকে। কেউবা বিভিন্ন চিন্তা মাথায় নিয়ে সড়কে মর্মান্তিক মৃত্যুতে প্রাণ হারাচ্ছে। এসব মৃত্যুর জন্য অনেকেই পরিবারের অতি বিলাসিতাকেও দায়ী করছেন। এসব মৃত্যু রুখতে পারিবারিক চাপ প্রয়োগ বন্ধ করার বিকল্প নেই বলে জানান প্রবাসীরা।