বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আমবাগানে নিয়ে শিশুকে পালাক্রমে ধর্ষণ, আটক ৪

ছবি : সংগৃহীত

তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া এক শিশুকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ চার কিশোরের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চাঁদপুর পৌর এলাকার বাবুরহাট দক্ষিণ দাসাদী মজুমদারবাড়ির আমবাগানে এ ঘটনা ঘটলে বিষয়টি আপস-মীমাংসার নামে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলে বলে জানা যায়।

পরবর্তী সময়ে ঘটনার শিকার শিশুটির বাবা মামলা করলে চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনার রাতেই অভিযুক্ত চার কিশোরকে আটক করে। তারা হলো, আরাফাত হোসেন (১২), রিয়াজ হোসেন (১২), শাহজালাল দেওয়ান (১৩) ও  শাহপরান (১২)। পুলিশ তাদের আদালতে সোপর্দ করলে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই শিশুকে স্থানীয় চার কিশোর আম খাওয়ানোর কথা বলে বাড়ির কাছের আমবাগানে নিয়ে যায়। পরে তারা মেয়েটির মুখে গামছা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে মেয়েটির মুখের গামছা খুলে গেলে চিৎকার শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে শিশুটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় স্বজনরা উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও চাঁদপুর সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) আবদুর রাজ্জাক মীর জানান, মামলার ভিকটিম ও আসামি উভয়ই অপ্রাপ্ত বয়স্ক। এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়েছে। অভিযুক্ত চার কিশোরকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আমবাগানে নিয়ে শিশুকে পালাক্রমে ধর্ষণ, আটক ৪

প্রকাশের সময় : ০৪:১৫:৩৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া এক শিশুকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ চার কিশোরের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চাঁদপুর পৌর এলাকার বাবুরহাট দক্ষিণ দাসাদী মজুমদারবাড়ির আমবাগানে এ ঘটনা ঘটলে বিষয়টি আপস-মীমাংসার নামে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলে বলে জানা যায়।

পরবর্তী সময়ে ঘটনার শিকার শিশুটির বাবা মামলা করলে চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনার রাতেই অভিযুক্ত চার কিশোরকে আটক করে। তারা হলো, আরাফাত হোসেন (১২), রিয়াজ হোসেন (১২), শাহজালাল দেওয়ান (১৩) ও  শাহপরান (১২)। পুলিশ তাদের আদালতে সোপর্দ করলে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই শিশুকে স্থানীয় চার কিশোর আম খাওয়ানোর কথা বলে বাড়ির কাছের আমবাগানে নিয়ে যায়। পরে তারা মেয়েটির মুখে গামছা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে মেয়েটির মুখের গামছা খুলে গেলে চিৎকার শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে শিশুটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় স্বজনরা উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও চাঁদপুর সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) আবদুর রাজ্জাক মীর জানান, মামলার ভিকটিম ও আসামি উভয়ই অপ্রাপ্ত বয়স্ক। এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়েছে। অভিযুক্ত চার কিশোরকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।