মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের জগদল বাজারের জবাইখানা তালাবদ্ধ, ক্রেতা-বিক্রেতা বিপাকে 

পঞ্চগড়ের জগদল বাজারের পশু জবাইখানায় তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে পশু জবাই করতে না পারায় আয় বন্ধ হয়ে গেছে মাংস ব্যবসায়ীদের। সেই সঙ্গে মাংস কিনতে গিয়ে চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন ক্রেতারাও।মাংস ব্যবসায়ীরা পশু প্রতি ২ শ’ টাকা খাজনা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় হাটের  ইজারাদারের লোক সোমবার (২২ এপ্রিল) সকালে  তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মাংস ব্যবসায়ীরা। গত বছর পশুপ্রতি ৫০ খাজনা দিয়েছেন কিন্তু এবছর হাটের ইজারাদার পশু প্রতি ২শ’ টাকা খাজনা বেঁধে দেন।মাংস

ব্যবসায়ীরা জানান, আগে গরু প্রতি ৫০ টাকা করে খাজনা দিয়েছি।এবছর নতুন ইজারাদার আসায় ২ শ’ টাকা দাবি কছে । এ নিয়ে আমরা বসতেও চেয়েছি। কিন্তু বসার আগেই জবাইখানায় গিয়ে দেখি তালা দেওয়া হয়েছে।মাংস ব্যবসায়ী বেলাল বলেন, এ বছর নতুন হাট ইজারাদার এসে গরু প্রতি ২শ টাকা খাজনা চাইছে। না দিলে গরু জবাই করতে দেননি।  মাংস কিনতে আসা আব্দুল জব্বার বলেন, বাড়িতে মেহমান আসছে। তাই জগদল বাজারে মাংস নিতে এসেছিলাম। কিন্ত দেখছি সব দোকান বন্ধ। পরে শুনছি পশু জবাই করতে দেননি হাট কমিটি। ব্যবসায়ী নুর ইসলাম নুরু বলেন, ৪০ বছর ধরে ব্যবসা করে আসছি। খাজনা নিয়ে এ রকম কোনদিন হয়নি। পশুপ্রতি ২শ টাকা দাবি অযৌক্তিক। সরকারি দর অনুযায়ী খাজনা নেবে, বেশি কেন দাবি করবেন? গরু জবাই করতে না পারলে ৫০-৬০ জন ব্যবসায়ীসহ তাদের কর্মচারীরা বেকার হয়ে পড়বে বলেও জানান তিনি। হাট ইজারাদার আলমগীর হোসেন বাবু বলেন, কয়েকদিন হলো হাট ইজারা নেওয়ার। এ পর্যন্ত এক টাকাও খাজনা দেননি তারা। গরুর পা ভাঙা, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত, চোরাই গরু এখানে জবাই হয়। বাইরে থেকে মাংস নিয়ে এসে এখানে বিক্রি করছে। এ অনিয়ম বন্ধ করার চেষ্টা করছি। তবে সরকার নির্ধারিত খাজনার বাইরে এক টাকাও নেওয়া হবে না বলে জানান তিনি

পঞ্চগড়ের জগদল বাজারের জবাইখানা তালাবদ্ধ, ক্রেতা-বিক্রেতা বিপাকে 

প্রকাশের সময় : ০৯:১৫:১২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

পঞ্চগড়ের জগদল বাজারের পশু জবাইখানায় তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এতে পশু জবাই করতে না পারায় আয় বন্ধ হয়ে গেছে মাংস ব্যবসায়ীদের। সেই সঙ্গে মাংস কিনতে গিয়ে চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন ক্রেতারাও।মাংস ব্যবসায়ীরা পশু প্রতি ২ শ’ টাকা খাজনা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় হাটের  ইজারাদারের লোক সোমবার (২২ এপ্রিল) সকালে  তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মাংস ব্যবসায়ীরা। গত বছর পশুপ্রতি ৫০ খাজনা দিয়েছেন কিন্তু এবছর হাটের ইজারাদার পশু প্রতি ২শ’ টাকা খাজনা বেঁধে দেন।মাংস

ব্যবসায়ীরা জানান, আগে গরু প্রতি ৫০ টাকা করে খাজনা দিয়েছি।এবছর নতুন ইজারাদার আসায় ২ শ’ টাকা দাবি কছে । এ নিয়ে আমরা বসতেও চেয়েছি। কিন্তু বসার আগেই জবাইখানায় গিয়ে দেখি তালা দেওয়া হয়েছে।মাংস ব্যবসায়ী বেলাল বলেন, এ বছর নতুন হাট ইজারাদার এসে গরু প্রতি ২শ টাকা খাজনা চাইছে। না দিলে গরু জবাই করতে দেননি।  মাংস কিনতে আসা আব্দুল জব্বার বলেন, বাড়িতে মেহমান আসছে। তাই জগদল বাজারে মাংস নিতে এসেছিলাম। কিন্ত দেখছি সব দোকান বন্ধ। পরে শুনছি পশু জবাই করতে দেননি হাট কমিটি। ব্যবসায়ী নুর ইসলাম নুরু বলেন, ৪০ বছর ধরে ব্যবসা করে আসছি। খাজনা নিয়ে এ রকম কোনদিন হয়নি। পশুপ্রতি ২শ টাকা দাবি অযৌক্তিক। সরকারি দর অনুযায়ী খাজনা নেবে, বেশি কেন দাবি করবেন? গরু জবাই করতে না পারলে ৫০-৬০ জন ব্যবসায়ীসহ তাদের কর্মচারীরা বেকার হয়ে পড়বে বলেও জানান তিনি। হাট ইজারাদার আলমগীর হোসেন বাবু বলেন, কয়েকদিন হলো হাট ইজারা নেওয়ার। এ পর্যন্ত এক টাকাও খাজনা দেননি তারা। গরুর পা ভাঙা, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত, চোরাই গরু এখানে জবাই হয়। বাইরে থেকে মাংস নিয়ে এসে এখানে বিক্রি করছে। এ অনিয়ম বন্ধ করার চেষ্টা করছি। তবে সরকার নির্ধারিত খাজনার বাইরে এক টাকাও নেওয়া হবে না বলে জানান তিনি