মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোরে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, গ্রেপ্তার ১

  • যশোর অফিস
  • প্রকাশের সময় : ০৯:২১:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪
  • ১৩

প্রতীকী ছবি। সংগৃহীত

যশোরে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তার টিপু সুলতান বেনাপোল পোর্টথানার পুটখালী গ্রামের চাঁনমিয়ার ছেলে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার অপহৃত ব্যবসায়ী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার সোনাপুর গ্রামের মধুসদন বিশ্বাস বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছেন।

পলাতক আসামিরা হলেন, যশোর সদর উপজেলার চুরামনকাটি গ্রামের লিটন, রাসেল ও জুয়েল।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, মধুসূদন বিশ্বাসের রাজবাড়ীতে একমি কোম্পানির ডিলারশিপের ডিপো ছিলো। অন্য দিকে টিপু একমি কোম্পানিতে চাকরি করতো। সেই সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয়। এসময় টিপু জানায় যশোরে তার কিছু একমির পণ্য রয়েছে। যা তিনি মধুসূদনের মাধ্যমে বিক্রি করতে চান। দুইপক্ষই রাজি হওয়ায় টিপু একলাখ টাকার মাল রাজবাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এই বাবদ একলাখ টাকার একটি চেক দেয় মধুসূদন। পরবর্তিতে টিপু ওই চেকেরন বিপরীতে মধুসূদনের বিরুদ্ধে যশোর আদালতে মামলা করেন। ওই মামলায় গত সোমবার হাজিরা দিতে আসেন মধুসদন। বেলা ২ টায় আসামির রেলস্টেশন এলাকায়  মধুসুদনকে পেয়ে অপহরণ করে চুরামনকাটি এলাকায় খালপাড়ে আটকে রাখে। এরপর তারকাছে দুইলাখ টাকা চাঁদাদাবি করে। বিভিন্ন ধরণের হুমকি ধামকি দেয় এবং মধুসদনের কাছে থাকা ৮৪ হাজার টাকা ও মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে আরও ৫০ হাজার টাকা বাড়ি থেকে আনায়।

এক পর্যায় বিষয়টি জানাজানি হলে মধুসুদনের স্বজনেরা যশোরে এসে পুলিশের সহযোগিতা নেন। পুলিশ আসামিদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলেই মধুসূদনকে ছেড়ে দিয়ে সটকে পরে টিপুসহ তার সহকারীরা। পরে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে টিপুকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করে।

পুলিশ জানিয়েছে এঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।

যশোরে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, গ্রেপ্তার ১

প্রকাশের সময় : ০৯:২১:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

যশোরে ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তার টিপু সুলতান বেনাপোল পোর্টথানার পুটখালী গ্রামের চাঁনমিয়ার ছেলে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার অপহৃত ব্যবসায়ী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার সোনাপুর গ্রামের মধুসদন বিশ্বাস বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছেন।

পলাতক আসামিরা হলেন, যশোর সদর উপজেলার চুরামনকাটি গ্রামের লিটন, রাসেল ও জুয়েল।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, মধুসূদন বিশ্বাসের রাজবাড়ীতে একমি কোম্পানির ডিলারশিপের ডিপো ছিলো। অন্য দিকে টিপু একমি কোম্পানিতে চাকরি করতো। সেই সুবাদে তার সাথে পরিচয় হয়। এসময় টিপু জানায় যশোরে তার কিছু একমির পণ্য রয়েছে। যা তিনি মধুসূদনের মাধ্যমে বিক্রি করতে চান। দুইপক্ষই রাজি হওয়ায় টিপু একলাখ টাকার মাল রাজবাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এই বাবদ একলাখ টাকার একটি চেক দেয় মধুসূদন। পরবর্তিতে টিপু ওই চেকেরন বিপরীতে মধুসূদনের বিরুদ্ধে যশোর আদালতে মামলা করেন। ওই মামলায় গত সোমবার হাজিরা দিতে আসেন মধুসদন। বেলা ২ টায় আসামির রেলস্টেশন এলাকায়  মধুসুদনকে পেয়ে অপহরণ করে চুরামনকাটি এলাকায় খালপাড়ে আটকে রাখে। এরপর তারকাছে দুইলাখ টাকা চাঁদাদাবি করে। বিভিন্ন ধরণের হুমকি ধামকি দেয় এবং মধুসদনের কাছে থাকা ৮৪ হাজার টাকা ও মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে আরও ৫০ হাজার টাকা বাড়ি থেকে আনায়।

এক পর্যায় বিষয়টি জানাজানি হলে মধুসুদনের স্বজনেরা যশোরে এসে পুলিশের সহযোগিতা নেন। পুলিশ আসামিদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলেই মধুসূদনকে ছেড়ে দিয়ে সটকে পরে টিপুসহ তার সহকারীরা। পরে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে টিপুকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করে।

পুলিশ জানিয়েছে এঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।