মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করছেন-কাজী নাবিল,এমপি

যশোর-৩ আসনের এমপি, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ বলেছেন, ক্রীড়াই পারে সকল মতভেদ দুর করে নানা বয়সী মানুষকে এক কাতারে দাঁড় করাতে। ক্রীড়া শৈল্পিক বিষয়। এটি অর্জনে প্রয়োজন অধ্যাবসায়। আর প্রতিটি মানুষকে সুস্থ ও সবল থাকতে হলে ক্রীড়ার কোন বিকল্প নেই। সবাইকে দিনের কোন না কোন সময়ে ক্রীড়া চর্চায় মনোযোগী হওয়া দরকার।
তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজে ক্রীড়ামোদী। ক্রীড়াঙ্গনকে সব সময় আলোকিত করার জন্য পৃষ্টপোষকতা করে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। যার সারথী আমরা আর বড় শক্তি নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা।
শনিবার দুপুরে সরকারি এম এম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মর্জিনা আক্তারের সভাপতিত্বে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কাজী নাবিল আহমেদ এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন কলেজের উপাধ্যক্ষ ডক্টর আবু বক্কর সিদ্দিকী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা কমিটির আহবায়ক ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর মদন কুমার সাহা।
এছাড়া বক্তব্য রাখেন কলেজের ছাত্রলীগ নেতা তৌহিদুল ইসলাম ও ইনামুল ইসলাম ইমন। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন প্রভাষক রেহমান আজিজ।
এর আগে কলেজের বিএনসিসি দল প্রধান অতিথি এম পি কাজী নাবিল আহমেদকে গার্ড অব অর্নার প্রদান করে। এছাড়া কলেজে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার, মহকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত গ্যালারি, সাইকোলজিক্যাল কাউন্সেলিং সেন্টারের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি।
গত মার্চ মাসের ৩ তারিখে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করা হয়। যার সমাপনী ঘটে ৫ মার্চ। ২২টি ইভেন্টে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় ছাত্রদের মধ্যে সেরা ক্রীড়াবিদ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন ¯œাতক পার্স কোসের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আজমুল ইসলাম সুমন। রানারআপ হয়েছেন মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ওয়াকার ইউনুস। ছাত্রী বিভাগের সেরার মুকুট পরেছেন দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষাথী তানিয়া খাতুন। রানার আপ হয়েছেন ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তাহিয়া খাতুন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সেলিনা খাতুন, যশোর শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক সহযোগী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন, কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীবৃন্দ ।

প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করছেন-কাজী নাবিল,এমপি

প্রকাশের সময় : ১০:২৯:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪

যশোর-৩ আসনের এমপি, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ বলেছেন, ক্রীড়াই পারে সকল মতভেদ দুর করে নানা বয়সী মানুষকে এক কাতারে দাঁড় করাতে। ক্রীড়া শৈল্পিক বিষয়। এটি অর্জনে প্রয়োজন অধ্যাবসায়। আর প্রতিটি মানুষকে সুস্থ ও সবল থাকতে হলে ক্রীড়ার কোন বিকল্প নেই। সবাইকে দিনের কোন না কোন সময়ে ক্রীড়া চর্চায় মনোযোগী হওয়া দরকার।
তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজে ক্রীড়ামোদী। ক্রীড়াঙ্গনকে সব সময় আলোকিত করার জন্য পৃষ্টপোষকতা করে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। যার সারথী আমরা আর বড় শক্তি নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা।
শনিবার দুপুরে সরকারি এম এম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মর্জিনা আক্তারের সভাপতিত্বে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কাজী নাবিল আহমেদ এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন কলেজের উপাধ্যক্ষ ডক্টর আবু বক্কর সিদ্দিকী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা কমিটির আহবায়ক ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর মদন কুমার সাহা।
এছাড়া বক্তব্য রাখেন কলেজের ছাত্রলীগ নেতা তৌহিদুল ইসলাম ও ইনামুল ইসলাম ইমন। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন প্রভাষক রেহমান আজিজ।
এর আগে কলেজের বিএনসিসি দল প্রধান অতিথি এম পি কাজী নাবিল আহমেদকে গার্ড অব অর্নার প্রদান করে। এছাড়া কলেজে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার, মহকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত গ্যালারি, সাইকোলজিক্যাল কাউন্সেলিং সেন্টারের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি।
গত মার্চ মাসের ৩ তারিখে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করা হয়। যার সমাপনী ঘটে ৫ মার্চ। ২২টি ইভেন্টে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় ছাত্রদের মধ্যে সেরা ক্রীড়াবিদ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন ¯œাতক পার্স কোসের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আজমুল ইসলাম সুমন। রানারআপ হয়েছেন মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ওয়াকার ইউনুস। ছাত্রী বিভাগের সেরার মুকুট পরেছেন দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষাথী তানিয়া খাতুন। রানার আপ হয়েছেন ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তাহিয়া খাতুন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সেলিনা খাতুন, যশোর শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক সহযোগী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন, কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীবৃন্দ ।