সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘১০ বছর ধরে ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করছেন মোদি’

ছবি-সংগৃহীত

১০ বছর ধরেই ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বুধবার রায়বেরেলির এক নির্বাচনী সভা থেকে এই ভাষাতেই ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধি। এদিন প্রধানমন্ত্রী ধর্মীয় মেরুকরণের কথা অস্বীকার করে মুসলিম সম্প্রদায়কে কাছে টানার চেষ্টা করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই অবস্থান বদল নিয়ে নির্বাচনী সভা থেকেই খোঁচা দিতে দেখা যায় প্রিয়ঙ্কাকে।

এদিন প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করে নির্বাচনী সভা থেকে প্রিয়ঙ্কা জানান, ‘গত ১০ বছর ধরে শুধু ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী। উনি এতদিন ধরে যা করে এসেছেন, তা এখন অস্বীকার করছেন। সারা বিশ্বের কাছে তিনি তার অবস্থান জানিয়েছিলেন। এখন আচমকা এমন কী হল যে তাকে সবকিছু অস্বীকার করতে হচ্ছে।

উল্লেখ্য, প্রথম চার দফার ভোটের পরে আচমকাই ‘মুসলিম প্রেমী’ হয়ে ওঠার মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন এক চ্যানেলে নিজের ঘনিষ্ঠ উপস্থাপিকাকে সাক্ষা‍ৎকার দিতে গিয়ে মুসলিমদের নিয়ে সুর নরম করেছিলেন মোদি। ধর্মীয় মেরুকরণের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেছিলেন, ‘কে বলল যে আমি অনুপ্রবেশকারী ও একাধিক সন্তান বলতে মুসলিমদের ইঙ্গিত করেছি? অনেক গরিব এবং দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা পরিবারের একাধিক সন্তান রয়েছে। আমি কখনও হিন্দু কিংবা মুসলিমদের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করিনি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা শুরু হয়। এবার প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের পাল্টা কটাক্ষ ছুড়ে দিলেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধি।

খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনা,চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির দোয়া মাহফিল

‘১০ বছর ধরে ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করছেন মোদি’

প্রকাশের সময় : ১০:২৯:০৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪

১০ বছর ধরেই ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বুধবার রায়বেরেলির এক নির্বাচনী সভা থেকে এই ভাষাতেই ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধি। এদিন প্রধানমন্ত্রী ধর্মীয় মেরুকরণের কথা অস্বীকার করে মুসলিম সম্প্রদায়কে কাছে টানার চেষ্টা করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই অবস্থান বদল নিয়ে নির্বাচনী সভা থেকেই খোঁচা দিতে দেখা যায় প্রিয়ঙ্কাকে।

এদিন প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করে নির্বাচনী সভা থেকে প্রিয়ঙ্কা জানান, ‘গত ১০ বছর ধরে শুধু ধর্মীয় মেরুকরণের রাজনীতি করে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী। উনি এতদিন ধরে যা করে এসেছেন, তা এখন অস্বীকার করছেন। সারা বিশ্বের কাছে তিনি তার অবস্থান জানিয়েছিলেন। এখন আচমকা এমন কী হল যে তাকে সবকিছু অস্বীকার করতে হচ্ছে।

উল্লেখ্য, প্রথম চার দফার ভোটের পরে আচমকাই ‘মুসলিম প্রেমী’ হয়ে ওঠার মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির মালিকানাধীন এক চ্যানেলে নিজের ঘনিষ্ঠ উপস্থাপিকাকে সাক্ষা‍ৎকার দিতে গিয়ে মুসলিমদের নিয়ে সুর নরম করেছিলেন মোদি। ধর্মীয় মেরুকরণের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেছিলেন, ‘কে বলল যে আমি অনুপ্রবেশকারী ও একাধিক সন্তান বলতে মুসলিমদের ইঙ্গিত করেছি? অনেক গরিব এবং দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা পরিবারের একাধিক সন্তান রয়েছে। আমি কখনও হিন্দু কিংবা মুসলিমদের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করিনি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা শুরু হয়। এবার প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যের পাল্টা কটাক্ষ ছুড়ে দিলেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধি।