মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিউ ইয়র্কে প্রবাসী ব্যবসায়ীকে গুলি করার হুমকি

মোহাম্মদ আজিজ (বামে) ও শাহ নেওয়াজ (ডানে)

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্যে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন আরেক প্রবাসী। উক্ত ব্যবসায়ী যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম সংগঠন বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও প্রবীণ নির্মাণ ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্য গুলি করার হুমকির ঘটনায় নিউ ইয়র্ক প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে হুমকির ঘটনা প্রকাশ করেন উক্ত ব্যবসায়ী।
বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ গত ৪ জুন সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের একটি পার্টি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে নিউ ইয়র্কের হোম কেয়ার ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজ প্রকাশ্যে তাকে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।
তিনি বলেন, গত ২২ মে জ্যাকসন হাইটসের স্মার্ট টেক-এ বাংলাদেশ ডে প্যারেডের প্রস্তুতি সভায় প্যারেডের আহবায়ক শাহ নেওয়াজ তাকে নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেন। শাহ নেওয়াজ বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডকে ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা বলে উল্লেখ করেন। উক্ত সভায় উপস্থিত বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রব ও সাধারন সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী তাৎক্ষণিক তার বিরুপ মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান। এরপর থেকেই শাহ নেওয়াজ তাকে গালাগালিসহ নানা হুমকি দিয়ে আসছেন।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সোসাইটির অন্যতম সদস্য সারোয়ার খান বাবু বলেন, ঘটনার পরদিন ২৩ মে জ্যাকসন হাইটসে ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজের সাথে তার দেখা হয় নবান্ন রেস্টুরেন্টের সামনে।
সোসাইটিকে নিয়ে বিরুপ মন্তব্যের বিষয়টি তুলে তিনি শাহ নেওয়াজ বলেন, আপনি সমাজের একজন গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং নিজেও বাংলাদেশ সোসাইটির সহসভাপতির পদে নির্বাচন করেছেন। সোসাইটিকে নিয়ে এমন বাজে মন্তব্য করার অধিকার আপনার নাই। দু’য়েক কথার পর তিনি আজিজের ব্যক্তিগত, ব্যবসায়িক ও পারিবারিক বিষয়ে নানা কথা বলেন। এক পর্যায়ে শাহ নেওয়াজ উত্তেজিত হয়ে অনেক লোকের সামনেই বলেন ‘আই উইল শুট আজিজ’। এসময় আকতার হোসেন নামের নামে আরও একজন প্রবাসীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন বলে জানান সারোয়ার খান বাবু।
বাবু সাংবাদিকদের সামনে প্রকৃত ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরে বলেন, প্রকাশ্য দিবালোকে একজন মানুষকে কেউ গুলি করার হুমকি দিতে পারেন না। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে। এ বিষয়ে যদি আদালতে গিয়ে সাক্ষ্য দিতে হয় তিনি সাক্ষ্য দিবেন।
ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আজিজ বলেন, কী কারণে শাহ নেওয়াজ আমার বাবাকে এবং আমাকে নিয়ে গালাগালি করেছে তা তিনি জানেন না। তিনি বলেন আমার বাবা একজন ব্যবসায়ী ছিলেন। পুরান ঢাকার ইসলামপুরে নুর ভবনে ঢুকতে গিয়ে বাম পাশে ‘আজিজ ব্রাদার্স’ নামে যে দোকানটি ছিল, আমি সেই আজিজ। শাহ নেওয়াজ কেন তার নামে বিভিন্ন স্থানে কুৎসা রটাচ্ছেন এবং কেনই বা গুলি করার হুমকি দিচ্ছেন তা তিনি জানেন না। উক্ত ঘটনায় আইনি আশ্রয় নেবার ইঙ্গিত দেন তিনি।
এ ব্যাপারে ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বাবু মিথ্যা কথা বলেছেন। সংবাদ সম্মেলনের পরদিন বাবু তার অফিসে গিয়েছিলেন। এটা নিয়ে আর কথা বলবেন না বলে বাবু জানান। তিনি বলেন, আজিজ বাবুর কাঁধে বন্দুক রেখে স্বার্থ উদ্ধার করতে চেয়েছিল কিন্তু বাবু সেটা বুঝে ফেলেছে, তিনি আজিজের কথায় আর সাঁয় দেয় না। তবে কয়েকজনের সঙ্গে বাবু তার অফিসে যাবার কথা স্বীকার করলেও শাহ নেওয়াজের সব কথাই মিথ্যা বলে জানিয়েছেন।

নিউ ইয়র্কে প্রবাসী ব্যবসায়ীকে গুলি করার হুমকি

প্রকাশের সময় : ১২:১৪:২০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪
যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্যে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন আরেক প্রবাসী। উক্ত ব্যবসায়ী যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম সংগঠন বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও প্রবীণ নির্মাণ ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্য গুলি করার হুমকির ঘটনায় নিউ ইয়র্ক প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে হুমকির ঘটনা প্রকাশ করেন উক্ত ব্যবসায়ী।
বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ গত ৪ জুন সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের একটি পার্টি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে নিউ ইয়র্কের হোম কেয়ার ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজ প্রকাশ্যে তাকে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।
তিনি বলেন, গত ২২ মে জ্যাকসন হাইটসের স্মার্ট টেক-এ বাংলাদেশ ডে প্যারেডের প্রস্তুতি সভায় প্যারেডের আহবায়ক শাহ নেওয়াজ তাকে নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেন। শাহ নেওয়াজ বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডকে ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা বলে উল্লেখ করেন। উক্ত সভায় উপস্থিত বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রব ও সাধারন সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী তাৎক্ষণিক তার বিরুপ মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান। এরপর থেকেই শাহ নেওয়াজ তাকে গালাগালিসহ নানা হুমকি দিয়ে আসছেন।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সোসাইটির অন্যতম সদস্য সারোয়ার খান বাবু বলেন, ঘটনার পরদিন ২৩ মে জ্যাকসন হাইটসে ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজের সাথে তার দেখা হয় নবান্ন রেস্টুরেন্টের সামনে।
সোসাইটিকে নিয়ে বিরুপ মন্তব্যের বিষয়টি তুলে তিনি শাহ নেওয়াজ বলেন, আপনি সমাজের একজন গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং নিজেও বাংলাদেশ সোসাইটির সহসভাপতির পদে নির্বাচন করেছেন। সোসাইটিকে নিয়ে এমন বাজে মন্তব্য করার অধিকার আপনার নাই। দু’য়েক কথার পর তিনি আজিজের ব্যক্তিগত, ব্যবসায়িক ও পারিবারিক বিষয়ে নানা কথা বলেন। এক পর্যায়ে শাহ নেওয়াজ উত্তেজিত হয়ে অনেক লোকের সামনেই বলেন ‘আই উইল শুট আজিজ’। এসময় আকতার হোসেন নামের নামে আরও একজন প্রবাসীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন বলে জানান সারোয়ার খান বাবু।
বাবু সাংবাদিকদের সামনে প্রকৃত ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরে বলেন, প্রকাশ্য দিবালোকে একজন মানুষকে কেউ গুলি করার হুমকি দিতে পারেন না। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে। এ বিষয়ে যদি আদালতে গিয়ে সাক্ষ্য দিতে হয় তিনি সাক্ষ্য দিবেন।
ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আজিজ বলেন, কী কারণে শাহ নেওয়াজ আমার বাবাকে এবং আমাকে নিয়ে গালাগালি করেছে তা তিনি জানেন না। তিনি বলেন আমার বাবা একজন ব্যবসায়ী ছিলেন। পুরান ঢাকার ইসলামপুরে নুর ভবনে ঢুকতে গিয়ে বাম পাশে ‘আজিজ ব্রাদার্স’ নামে যে দোকানটি ছিল, আমি সেই আজিজ। শাহ নেওয়াজ কেন তার নামে বিভিন্ন স্থানে কুৎসা রটাচ্ছেন এবং কেনই বা গুলি করার হুমকি দিচ্ছেন তা তিনি জানেন না। উক্ত ঘটনায় আইনি আশ্রয় নেবার ইঙ্গিত দেন তিনি।
এ ব্যাপারে ব্যবসায়ী শাহ নেওয়াজের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বাবু মিথ্যা কথা বলেছেন। সংবাদ সম্মেলনের পরদিন বাবু তার অফিসে গিয়েছিলেন। এটা নিয়ে আর কথা বলবেন না বলে বাবু জানান। তিনি বলেন, আজিজ বাবুর কাঁধে বন্দুক রেখে স্বার্থ উদ্ধার করতে চেয়েছিল কিন্তু বাবু সেটা বুঝে ফেলেছে, তিনি আজিজের কথায় আর সাঁয় দেয় না। তবে কয়েকজনের সঙ্গে বাবু তার অফিসে যাবার কথা স্বীকার করলেও শাহ নেওয়াজের সব কথাই মিথ্যা বলে জানিয়েছেন।