বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তলুন-আইজিপি

ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, ‘সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে চেষ্টা করলে এ শান্তির দেশে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ বাসা বাঁধতে পারবে না।’ তিনি জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

সোমবার (১০ জুন) সকালে সিলেট জেলা পুলিশ লাইনসে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ এসপি এম. শামসুল হক মিলনায়তনে ‘উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, ইমাম, আলেম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট এন্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ) আয়োজিত এ কর্মশালায় মুখ্য আলোচক ছিলেন, এটিইউর অতিরিক্ত আইজি এসএম রুহুল আমিন।

এটিইউর ডিআইজি (প্রশাসন) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. জাকির হোসেন খান এবং সিলেটের বিভাগীয় কমিশনের আবু আহমদ সিদ্দিকী।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান।

কর্মশালায় সিলেট জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল-মামুন, জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং সিলেট রেঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ এবং আলেমরাসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আইজিপি বলেন, ‘আমাদের দেশের মানুষ শান্তিপ্রিয়। তারা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদে বিশ্বাস করে না। দেশপ্রেম, দেশের শান্তি, কল্যাণ ও উন্নয়নের স্বার্থে সকলে এক।’ তিনি উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ইসলামের সঠিক ব্যাখ্যা তুলে ধরার জন্য আলেমদের প্রতি আহ্বান জানান।

পুলিশপ্রধান বলেন, ‘জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতিতে দেশের সাধারণ জনগণ একাত্মতা ঘোষণা করায় আমরা সকলে মিলে একসঙ্গে কাজ করে জঙ্গিবাদ দমনে সফল হয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ উন্নয়নের পথে বাধা, দেশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছেন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

মুখ্য আলোচক এস এম রুহুল আমিন বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট এবং ইসলামের দৃষ্টিতে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের অবস্থান তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ দমনে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করি যাচ্ছি। আমরা জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় আরও কাজ করতে চাই।’ তিনি জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় আলেম-ওলামাসহ সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন।

মূল প্রবন্ধে শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, ‘ইসলামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কোনো স্থান নেই। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ইসলামের অবস্থান অত্যন্ত সুস্পষ্ট। বাংলাদেশ পুলিশ সন্ত্রাসবাদ দমন ও নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এবং বিশেষায়িত ইউনিটসমূহ একযোগে কাজ করে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনের মধ্য দিয়ে দেশে-বিদেশে প্রশংসা অর্জন করেছে।

এর আগে আইজিপি সিলেট জেলা পুলিশ লাইনসে পুলিশ অফিসার্স মেস এবং এসএমপির কোতোয়ালি থানা কমপ্লেক্সে স্টুডিও অ্যাপার্টমেন্ট উদ্বোধন করেন।

জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তলুন-আইজিপি

প্রকাশের সময় : ০৯:৪৭:৩৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪

ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, ‘সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে চেষ্টা করলে এ শান্তির দেশে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ বাসা বাঁধতে পারবে না।’ তিনি জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

সোমবার (১০ জুন) সকালে সিলেট জেলা পুলিশ লাইনসে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ এসপি এম. শামসুল হক মিলনায়তনে ‘উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, ইমাম, আলেম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের ভূমিকা’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট এন্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ) আয়োজিত এ কর্মশালায় মুখ্য আলোচক ছিলেন, এটিইউর অতিরিক্ত আইজি এসএম রুহুল আমিন।

এটিইউর ডিআইজি (প্রশাসন) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. জাকির হোসেন খান এবং সিলেটের বিভাগীয় কমিশনের আবু আহমদ সিদ্দিকী।

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান।

কর্মশালায় সিলেট জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল-মামুন, জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং সিলেট রেঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ এবং আলেমরাসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আইজিপি বলেন, ‘আমাদের দেশের মানুষ শান্তিপ্রিয়। তারা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদে বিশ্বাস করে না। দেশপ্রেম, দেশের শান্তি, কল্যাণ ও উন্নয়নের স্বার্থে সকলে এক।’ তিনি উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ইসলামের সঠিক ব্যাখ্যা তুলে ধরার জন্য আলেমদের প্রতি আহ্বান জানান।

পুলিশপ্রধান বলেন, ‘জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতিতে দেশের সাধারণ জনগণ একাত্মতা ঘোষণা করায় আমরা সকলে মিলে একসঙ্গে কাজ করে জঙ্গিবাদ দমনে সফল হয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ উন্নয়নের পথে বাধা, দেশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করছেন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

মুখ্য আলোচক এস এম রুহুল আমিন বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট এবং ইসলামের দৃষ্টিতে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের অবস্থান তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ দমনে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করি যাচ্ছি। আমরা জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় আরও কাজ করতে চাই।’ তিনি জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় আলেম-ওলামাসহ সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন।

মূল প্রবন্ধে শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, ‘ইসলামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কোনো স্থান নেই। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ইসলামের অবস্থান অত্যন্ত সুস্পষ্ট। বাংলাদেশ পুলিশ সন্ত্রাসবাদ দমন ও নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এবং বিশেষায়িত ইউনিটসমূহ একযোগে কাজ করে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমনের মধ্য দিয়ে দেশে-বিদেশে প্রশংসা অর্জন করেছে।

এর আগে আইজিপি সিলেট জেলা পুলিশ লাইনসে পুলিশ অফিসার্স মেস এবং এসএমপির কোতোয়ালি থানা কমপ্লেক্সে স্টুডিও অ্যাপার্টমেন্ট উদ্বোধন করেন।