বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ক্ষেতলালে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েল (৩৫) কে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।
গ্রেপ্তারকৃত ওই আসামি ক্ষেতলাল পৌর মহল্লার ভাসিলা গ্রামের আসরাফের ছেলে। গত ৩০ (জুন) রবিবার ক্ষেতলাল থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন।
থানা ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তুলশীগঙ্গা ইউনিয়নের মনঝার বাজারের একজন নাবালিকা মেয়েকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণ করার ঘটনায় ওই ভুক্তভোগী মেয়ের বাবা বাদী হয়ে গত ২০২০ সালে ক্ষেতলাল থানায় আসামি জুয়েলের নামে এজাহার দায়ের করেন।
পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতে মামলার বিচারকার্য পরিচালনা শেষে আসামি জুয়েলের বিরুদ্ধে বাদীর আনিত অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায়। আসামি জুয়েলকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ধর্ষণের ঘটনায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজার রায় শুনার পর হইতে সে দীর্ঘদিন বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে ছিলো। গত রবিবার ক্ষেতলাল থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন।
এ বিষয়ে ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, বিজ্ঞ আদালত আসামি জুয়েলকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ধর্ষণের ঘটনায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজার রায় শুনার পর হইতে সে দীর্ঘদিন বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে ছিলো। থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন। পহেলা জুলাই সোমবার আসামি কে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ক্ষেতলালে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার

প্রকাশের সময় : ০৪:০৯:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০২৪
জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েল (৩৫) কে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।
গ্রেপ্তারকৃত ওই আসামি ক্ষেতলাল পৌর মহল্লার ভাসিলা গ্রামের আসরাফের ছেলে। গত ৩০ (জুন) রবিবার ক্ষেতলাল থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন।
থানা ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তুলশীগঙ্গা ইউনিয়নের মনঝার বাজারের একজন নাবালিকা মেয়েকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণ করার ঘটনায় ওই ভুক্তভোগী মেয়ের বাবা বাদী হয়ে গত ২০২০ সালে ক্ষেতলাল থানায় আসামি জুয়েলের নামে এজাহার দায়ের করেন।
পরবর্তীতে বিজ্ঞ আদালতে মামলার বিচারকার্য পরিচালনা শেষে আসামি জুয়েলের বিরুদ্ধে বাদীর আনিত অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায়। আসামি জুয়েলকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ধর্ষণের ঘটনায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজার রায় শুনার পর হইতে সে দীর্ঘদিন বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে ছিলো। গত রবিবার ক্ষেতলাল থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন।
এ বিষয়ে ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন, বিজ্ঞ আদালত আসামি জুয়েলকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ধর্ষণের ঘটনায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজার রায় শুনার পর হইতে সে দীর্ঘদিন বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে ছিলো। থানা পুলিশের একটি চৌকস টিম ঢাকায় অভিযান পরিচালনা করে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি জুয়েলকে গ্রেপ্তার করেন। পহেলা জুলাই সোমবার আসামি কে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।