বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ক্ষেতলালে সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ী নিহত 

;

জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে সড়ক দুর্ঘটনায় খায়রুল ইসলাম (৭০) নামের এক হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে।  নিহত ঐ ব্যক্তি উপজেলার হিন্দা পশ্চিম ইটাইল গ্রামের মৃত ফিরোজ মাস্টারের ছেলে।
৩ (জুলাই) বুধবার সকাল নয়টার সময় পৌর মহল্লার ইটাখোলা বাজারে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, ইটাখোলা বাজারের হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী খায়রুল ইসলাম সকালে বাইসাইকেল নিয়ে ভাসিলার দিক হতে ইটাখোলা তার নিজ দোকানে আসছিলেন। পথিমধ্যে আজিজ এর চাতালের সামনে পৌছালে একটি অটোরিশকাকে সাইট দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলে। এমন সময় পিছনে থাকা একটি ট্রাক তাকে ক্রস করার সময় ধাক্কা লেগে মাটিতে পড়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন।
হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে জয়পুরহাট সদর হাসপাতালে রেফার্ড করার কথা বলেন। নিহতের পরিবারের লোকজন বগুড়াতে রেফার্ড করার জন্য ডাক্তার কে অনুরোধ করেন। এমন সময় আহত ব্যক্তির অবস্থার অবনতি হলে সাথে সাথে ডাক্তার বিভিন্ন চেষ্টা করেও তার পরিস্থিতির কোন পরিবর্তন করতে পারে না। পরে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতের স্বজনরা জানান, নিহত খাইরুল ইসলাম। ক্ষেতলাল পৌর মহল্লার ইটাখোলা বাজারে হার্ডওয়ারের দোকান করতেন। প্রতিদিন বাড়ি থেকে বাইসাইকেল যোগে দোকানে আসা-যাওয়া করতেন। প্রতিদিনের ন্যায় আজ সকালেও তিনি বাসা থেকে বাইসাইকেল যোগে দোকানের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। সকাল ৯টার একটু পরেই আমরা তার সড়ক দুর্ঘটনার খবর পাই এবং হাসপাতালে আসি। এখানে আসার পরে তার মৃত্যু হয়েছে।
ব্যবসায়ী খাইরুল ইসলামের মৃত্যুর খবর শুনে দ্রুত তাকে দেখতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছুটে আসেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব দুলাল মিয়া সরদার। নিহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও এ ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেন তিনি।
নিহতের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. নির্ঝর বলেন, সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন রোগীকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তবে কিভাবে দূর্ঘটনাটি ঘটেছে কেউ বলতে পারছিলেন না। পরে জানতে পেরেছি ট্রাকের সাথে ধাক্কা লেগেছে। উনার মাথায় ও পায়ে আঘাত লেগেছিলো। মাথায় ব্রিডিং হচ্ছিলো তবে বাহির হতে দেখা যাচ্ছিলোনা। আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে জয়পুরহাট রেফার্ড করি। পরিবারের লোকজন বগুড়া নিয়ে যেতে চাইছিলো এমন সময় অবস্থার অবনতি হয় এবং তার মৃত্যু হয়।
ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, এ বিষয়ে পরিবারের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

ক্ষেতলালে সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ী নিহত 

প্রকাশের সময় : ০৩:২০:১১ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪
জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে সড়ক দুর্ঘটনায় খায়রুল ইসলাম (৭০) নামের এক হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে।  নিহত ঐ ব্যক্তি উপজেলার হিন্দা পশ্চিম ইটাইল গ্রামের মৃত ফিরোজ মাস্টারের ছেলে।
৩ (জুলাই) বুধবার সকাল নয়টার সময় পৌর মহল্লার ইটাখোলা বাজারে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, ইটাখোলা বাজারের হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী খায়রুল ইসলাম সকালে বাইসাইকেল নিয়ে ভাসিলার দিক হতে ইটাখোলা তার নিজ দোকানে আসছিলেন। পথিমধ্যে আজিজ এর চাতালের সামনে পৌছালে একটি অটোরিশকাকে সাইট দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলে। এমন সময় পিছনে থাকা একটি ট্রাক তাকে ক্রস করার সময় ধাক্কা লেগে মাটিতে পড়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন।
হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে জয়পুরহাট সদর হাসপাতালে রেফার্ড করার কথা বলেন। নিহতের পরিবারের লোকজন বগুড়াতে রেফার্ড করার জন্য ডাক্তার কে অনুরোধ করেন। এমন সময় আহত ব্যক্তির অবস্থার অবনতি হলে সাথে সাথে ডাক্তার বিভিন্ন চেষ্টা করেও তার পরিস্থিতির কোন পরিবর্তন করতে পারে না। পরে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতের স্বজনরা জানান, নিহত খাইরুল ইসলাম। ক্ষেতলাল পৌর মহল্লার ইটাখোলা বাজারে হার্ডওয়ারের দোকান করতেন। প্রতিদিন বাড়ি থেকে বাইসাইকেল যোগে দোকানে আসা-যাওয়া করতেন। প্রতিদিনের ন্যায় আজ সকালেও তিনি বাসা থেকে বাইসাইকেল যোগে দোকানের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। সকাল ৯টার একটু পরেই আমরা তার সড়ক দুর্ঘটনার খবর পাই এবং হাসপাতালে আসি। এখানে আসার পরে তার মৃত্যু হয়েছে।
ব্যবসায়ী খাইরুল ইসলামের মৃত্যুর খবর শুনে দ্রুত তাকে দেখতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছুটে আসেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব দুলাল মিয়া সরদার। নিহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও এ ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেন তিনি।
নিহতের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. নির্ঝর বলেন, সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন রোগীকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তবে কিভাবে দূর্ঘটনাটি ঘটেছে কেউ বলতে পারছিলেন না। পরে জানতে পেরেছি ট্রাকের সাথে ধাক্কা লেগেছে। উনার মাথায় ও পায়ে আঘাত লেগেছিলো। মাথায় ব্রিডিং হচ্ছিলো তবে বাহির হতে দেখা যাচ্ছিলোনা। আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে জয়পুরহাট রেফার্ড করি। পরিবারের লোকজন বগুড়া নিয়ে যেতে চাইছিলো এমন সময় অবস্থার অবনতি হয় এবং তার মৃত্যু হয়।
ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, এ বিষয়ে পরিবারের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।