বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীতে হলের সিট-বাণিজ্য, ছাত্রলীগ সভাপতি সহ ৬ জন বহিষ্কার

রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে (আইএইচটি) সিট-বাণিজ্য ও এক ছাত্রকে মারধরের অভিযোগে ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রলীগ সভাপতি মো. আল আমিন হোসেনকে এক বছরের জন্য অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ সময়ে তিনি ক্যাম্পাসে প্রবেশ ও ছাত্রাবাসে অবস্থান করতে পারবেন না।

আইএইচটি কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার বিকালে নোটিশ আকারে বিষয়টি প্রকাশ করেছে।

জানা যায়, সিট-বাণিজ্য ও এক ছাত্রকে মারধরের অভিযোগে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বহিষ্কৃত শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি এক বছর ক্যাম্পাসে প্রবেশ এবং হোস্টেলে অবস্থান করতে পারবেন না। তার সব অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমও বন্ধ থাকবে। শাস্তিপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ সভাপতি হলেন আল আমিন হোসেন। তিনি ডেন্টাল অনুষদের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

এদিকে ছয় মাসের জন্য বহিষ্কৃতরা হলেন- ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের ডেন্টাল অনুষদের (বি-গ্যালারি) শিক্ষার্থী মাসুদ পারভেজ এবং একই বর্ষের ফারহান হোসেন, শাহরিয়ার নাফিজ (ল্যাব-এ গ্যালারি), পারভেজ মোশারফ, নিলয় কুমার (রেডিওলজি-এ গ্যালারি)। তাদের শাস্তি হিসেবে ছয় মাসের জন্য ক্যাম্পাসে প্রবেশ ও হোস্টেলে অবস্থান নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ছাড়া একই শিক্ষাবর্ষের সিফাতকে (ফার্মেসি) ভবিষ্যতে এমন কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়েছে। প্রশাসনকে না জানিয়ে টাকা লেনদেনের জন্য একই শিক্ষাবর্ষের হাসানকেও (ফার্মেসি) সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়েছে।

প্রকাশিত ওই নোটিশে বলা হয়েছে, এক নম্বর শিক্ষার্থী (ছাত্রলীগের সভাপতি) প্রথম বর্ষের ছাত্র হাসানের কাছ থেকে হোস্টেলের সিট দেওয়ার নাম করে টাকা নেন। ২ থেকে ৬ নম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা (ছাত্রলীগ সভাপতির কর্মী) মো. হাসানকে মারধর করেন। এই মর্মে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে ৬ জুনের অ্যাকাডেমিক সভায় শাস্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই আদেশ ১ জুলাই কার্যকর হয়েছে। অধ্যক্ষ নোটিশটি সই করেছেন ১২ জুন।

এর আগে ২৯ এপ্রিল আইএইচটির ফার্মেসি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মো. হাসানকে মারধর করা হয়। পরে আহত অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ১ মে থেকে আইএইচটি ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়। এর প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে আইএইচটি অধ্যক্ষ ডা. ফারহানা হক জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ওই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন জমার পর অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল সভা হয়। সভায় জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার এই সিদ্ধান্ত হয়। আর গত কয়েকদিন অফিসিয়াল কাজের চাপ থাকায় এই সংক্রান্ত আদেশের নোটিশটি প্রকাশে দেরি হয় বলেও জানান তিনি।

রাজশাহীতে হলের সিট-বাণিজ্য, ছাত্রলীগ সভাপতি সহ ৬ জন বহিষ্কার

প্রকাশের সময় : ০৩:৫৪:৩৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুলাই ২০২৪

রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে (আইএইচটি) সিট-বাণিজ্য ও এক ছাত্রকে মারধরের অভিযোগে ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রলীগ সভাপতি মো. আল আমিন হোসেনকে এক বছরের জন্য অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ সময়ে তিনি ক্যাম্পাসে প্রবেশ ও ছাত্রাবাসে অবস্থান করতে পারবেন না।

আইএইচটি কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার বিকালে নোটিশ আকারে বিষয়টি প্রকাশ করেছে।

জানা যায়, সিট-বাণিজ্য ও এক ছাত্রকে মারধরের অভিযোগে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বহিষ্কৃত শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি এক বছর ক্যাম্পাসে প্রবেশ এবং হোস্টেলে অবস্থান করতে পারবেন না। তার সব অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমও বন্ধ থাকবে। শাস্তিপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ সভাপতি হলেন আল আমিন হোসেন। তিনি ডেন্টাল অনুষদের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

এদিকে ছয় মাসের জন্য বহিষ্কৃতরা হলেন- ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের ডেন্টাল অনুষদের (বি-গ্যালারি) শিক্ষার্থী মাসুদ পারভেজ এবং একই বর্ষের ফারহান হোসেন, শাহরিয়ার নাফিজ (ল্যাব-এ গ্যালারি), পারভেজ মোশারফ, নিলয় কুমার (রেডিওলজি-এ গ্যালারি)। তাদের শাস্তি হিসেবে ছয় মাসের জন্য ক্যাম্পাসে প্রবেশ ও হোস্টেলে অবস্থান নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ছাড়া একই শিক্ষাবর্ষের সিফাতকে (ফার্মেসি) ভবিষ্যতে এমন কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়েছে। প্রশাসনকে না জানিয়ে টাকা লেনদেনের জন্য একই শিক্ষাবর্ষের হাসানকেও (ফার্মেসি) সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়েছে।

প্রকাশিত ওই নোটিশে বলা হয়েছে, এক নম্বর শিক্ষার্থী (ছাত্রলীগের সভাপতি) প্রথম বর্ষের ছাত্র হাসানের কাছ থেকে হোস্টেলের সিট দেওয়ার নাম করে টাকা নেন। ২ থেকে ৬ নম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা (ছাত্রলীগ সভাপতির কর্মী) মো. হাসানকে মারধর করেন। এই মর্মে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে ৬ জুনের অ্যাকাডেমিক সভায় শাস্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই আদেশ ১ জুলাই কার্যকর হয়েছে। অধ্যক্ষ নোটিশটি সই করেছেন ১২ জুন।

এর আগে ২৯ এপ্রিল আইএইচটির ফার্মেসি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মো. হাসানকে মারধর করা হয়। পরে আহত অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ১ মে থেকে আইএইচটি ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়। এর প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে আইএইচটি অধ্যক্ষ ডা. ফারহানা হক জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। ওই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন জমার পর অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল সভা হয়। সভায় জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার এই সিদ্ধান্ত হয়। আর গত কয়েকদিন অফিসিয়াল কাজের চাপ থাকায় এই সংক্রান্ত আদেশের নোটিশটি প্রকাশে দেরি হয় বলেও জানান তিনি।