বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ত্বকের যত্নে ফেশিয়াল খুবই প্রয়োজন, আধুনিক চিকিৎসা কি বলে ?

ফেশিয়ালে মেডিক্যাল টাচ

ফেশিয়াল মানে এখন আর কেবল ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ফিরে পাওয়াই নয়, আরও বেশি কিছু। এমনই কিছু মেডি ফেশিয়াল নিয়ে রইল আলোচনা। ত্বকের বাড়তি যত্নে ফেশিয়াল তো তখন চাই-ই। কিন্তু এখন সময় বদলেছে। সৌন্দর্যের এই চিরায়ত যাত্রায় ত্বকের এই বাড়তি যত্নেও লেগেছে ওষুধের টাচ। ফলে সাধারণ চেনা ফেশিয়ালের সঙ্গে মিশেছে অ্যাকটিভ ইনগ্রেডিয়েন্টসের গুণ। অনেক সময় সাধারণ ফেশিয়ালে ত্বকে র‍্যাশ হয়। এগুলো সাধারণত ত্বকের উপরের স্তরেই কাজ করতে পারে। ত্বকের অভ্যন্তরে যেতে না পারায় যেমন ত্বকের সমস্যায় এদের কাছে তেমন কোনও সমাধান থাকে না, তেমনই এর প্রভাবও হয় খুবই ক্ষণস্থায়ী। এখানেই মেডিক্যাল ফেশিয়ালের প্রাসঙ্গিকতা। এই ফেশিয়ালে অ্যাকটিভ ইনগ্রেডিয়েন্টসকে ত্বকের অভ্যন্তরীণ লেয়ারে প্রবেশ করানো হয়। তাছাড়া কসমেসিউটিক্যাল প্রয়োগের মাধ্যমে এই ধরনের ফেশিয়াল ত্বকের নির্দিষ্ট সমস্যার সমাধান করে। এমনই কিছু মেডিক্যাল ফেশিয়ালের কথা বললেন ড. দেবশ্রী বনিক।

ও টু ডারম ফেশিয়াল:  দূষণের ফলে ত্বকে রেডনেস, অ্যাকনে, ফ্রি র‍্যাডিকাল দেখা যায়। সেক্ষেত্রে এই ফেশিয়াল ব্যবহার করা যায়। মাস্ক ব্যবহার করে মেশিনের মাধ্যমে হাই কনসেনট্রেশন(৯০%) অক্সিজেন দেওয়া হয়। এর ফলে ত্বকের পি এইচ ব্যালান্স ঠিক থাকে, ক্ষতিগ্রস্ত কোষ মেরামত হয়। ত্বকের বয়স কমে।

গোল্ড টোনিং উইথ হলিউড স্পেকট্রা: এই ফেশিয়ালের ফলে অ্যাকনের দাগ, সারজিকাল স্কারস, হাইপারপিগমেন্টেশন দূর হয়।

হাইড্রা ফেশিয়াল: মেশিনের মাধ্যমে মুখের মৃত কোষ সরিয়ে ফেলা হয়। ত্বকের সমস্যা অনুযায়ী গ্লাইকোলিক অ্যাসিড সহ নানা অ্যাক্টিভ উপাদান সিরামের মাধ্যমে ত্বকের অভ্যন্তরে প্রবেশ করানো হয়।

তাঁর কথায় “মিরাপিল ফেশিয়াল সহ আরও অনেক মেডিকেটেড ফেশিয়াল রয়েছে। তবে যেহেতু এই ধরনের ফেশিয়াল মেডিক্যাল কম্পাউন্ডস ব্যবহার করা হয় সেই কারণে সাধারণ সালঁর পরিবর্তে কোনও বিশেষজ্ঞের কাছে যান। তিনি আপনার ত্বককে পরীক্ষা করে, সেই অনুযায়ী ফেশিয়াল চিকিৎসা শুরু করবেন। মনে রাখবেন একটা সিটিংয়েই কিছু হবার নয়। এও তো চিকিৎসা। তাই ত্বকের অসুখ সারতে সময় লাগবে। ধৈর্য ধরতে হবে।”

তাহলে ত্বকের আরও একটু বাড়তি যত্নে আপনার স্কিন কেয়ার না হয় হাত মেলালো ওষুধের উপকারিতার সঙ্গে। তবে নিজে থেকে নয়, চিকিৎসকের সঠিক পরামর্শ মেনে।  সুত্র: সানন্দা।

ত্বকের যত্নে ফেশিয়াল খুবই প্রয়োজন, আধুনিক চিকিৎসা কি বলে ?

প্রকাশের সময় : ০৯:২৪:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪

ফেশিয়ালে মেডিক্যাল টাচ

ফেশিয়াল মানে এখন আর কেবল ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ফিরে পাওয়াই নয়, আরও বেশি কিছু। এমনই কিছু মেডি ফেশিয়াল নিয়ে রইল আলোচনা। ত্বকের বাড়তি যত্নে ফেশিয়াল তো তখন চাই-ই। কিন্তু এখন সময় বদলেছে। সৌন্দর্যের এই চিরায়ত যাত্রায় ত্বকের এই বাড়তি যত্নেও লেগেছে ওষুধের টাচ। ফলে সাধারণ চেনা ফেশিয়ালের সঙ্গে মিশেছে অ্যাকটিভ ইনগ্রেডিয়েন্টসের গুণ। অনেক সময় সাধারণ ফেশিয়ালে ত্বকে র‍্যাশ হয়। এগুলো সাধারণত ত্বকের উপরের স্তরেই কাজ করতে পারে। ত্বকের অভ্যন্তরে যেতে না পারায় যেমন ত্বকের সমস্যায় এদের কাছে তেমন কোনও সমাধান থাকে না, তেমনই এর প্রভাবও হয় খুবই ক্ষণস্থায়ী। এখানেই মেডিক্যাল ফেশিয়ালের প্রাসঙ্গিকতা। এই ফেশিয়ালে অ্যাকটিভ ইনগ্রেডিয়েন্টসকে ত্বকের অভ্যন্তরীণ লেয়ারে প্রবেশ করানো হয়। তাছাড়া কসমেসিউটিক্যাল প্রয়োগের মাধ্যমে এই ধরনের ফেশিয়াল ত্বকের নির্দিষ্ট সমস্যার সমাধান করে। এমনই কিছু মেডিক্যাল ফেশিয়ালের কথা বললেন ড. দেবশ্রী বনিক।

ও টু ডারম ফেশিয়াল:  দূষণের ফলে ত্বকে রেডনেস, অ্যাকনে, ফ্রি র‍্যাডিকাল দেখা যায়। সেক্ষেত্রে এই ফেশিয়াল ব্যবহার করা যায়। মাস্ক ব্যবহার করে মেশিনের মাধ্যমে হাই কনসেনট্রেশন(৯০%) অক্সিজেন দেওয়া হয়। এর ফলে ত্বকের পি এইচ ব্যালান্স ঠিক থাকে, ক্ষতিগ্রস্ত কোষ মেরামত হয়। ত্বকের বয়স কমে।

গোল্ড টোনিং উইথ হলিউড স্পেকট্রা: এই ফেশিয়ালের ফলে অ্যাকনের দাগ, সারজিকাল স্কারস, হাইপারপিগমেন্টেশন দূর হয়।

হাইড্রা ফেশিয়াল: মেশিনের মাধ্যমে মুখের মৃত কোষ সরিয়ে ফেলা হয়। ত্বকের সমস্যা অনুযায়ী গ্লাইকোলিক অ্যাসিড সহ নানা অ্যাক্টিভ উপাদান সিরামের মাধ্যমে ত্বকের অভ্যন্তরে প্রবেশ করানো হয়।

তাঁর কথায় “মিরাপিল ফেশিয়াল সহ আরও অনেক মেডিকেটেড ফেশিয়াল রয়েছে। তবে যেহেতু এই ধরনের ফেশিয়াল মেডিক্যাল কম্পাউন্ডস ব্যবহার করা হয় সেই কারণে সাধারণ সালঁর পরিবর্তে কোনও বিশেষজ্ঞের কাছে যান। তিনি আপনার ত্বককে পরীক্ষা করে, সেই অনুযায়ী ফেশিয়াল চিকিৎসা শুরু করবেন। মনে রাখবেন একটা সিটিংয়েই কিছু হবার নয়। এও তো চিকিৎসা। তাই ত্বকের অসুখ সারতে সময় লাগবে। ধৈর্য ধরতে হবে।”

তাহলে ত্বকের আরও একটু বাড়তি যত্নে আপনার স্কিন কেয়ার না হয় হাত মেলালো ওষুধের উপকারিতার সঙ্গে। তবে নিজে থেকে নয়, চিকিৎসকের সঠিক পরামর্শ মেনে।  সুত্র: সানন্দা।