বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য বড় দুঃসংবাদ

ছবি-সংগৃহীত

নতুন ম্যালওয়্যারের সন্ধান পেয়েছে সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ‘প্রমোন’। যা অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের বায়োমেট্রিক প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন যাচাইকরণ সুবিধাকে এড়িয়ে তথ্য চুরি করতে সক্ষম।

সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ‘প্রমোন’ এর বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ম্যালওয়্যারটির নাম ‘স্নোব্লাইন্ড’। এটি অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের যেকোনো নিরাপত্তা বলয়কে ফাঁকি দিয়ে স্মার্টফোন ও অ্যাপ থেকে তথ্য চুরি করতে পারে। এটি মোবাইল ফোনে প্রবেশ করলেও ফোনের সিকিউরিটি স্ক্যানারসহ বিভিন্ন নিরাপত্তাব্যবস্থা তা শনাক্ত করতে পারে না। ‘স্নোব্লাইন্ড’ অ্যাপের যাচাইকরণ পদ্ধতিও ফাঁকি দিতে পারে। ফলে ব্যবহারকারীদের ফোনে যেসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে, সেগুলো থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে থাকে অ্যাপটি।

‘প্রমোন’ জানায়, ম্যালওয়্যারটি ফোনে থাকলেও তা বোঝার উপায় থাকে না ব্যবহারকারীদের। ফলে ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে দূরে থাকা সাইবার অপরাধীদের কাছে পাঠাতে থাকে ম্যালওয়্যারটি। ফলে যেকোনো সময় সাইবার হামলার কবলে পড়তে পারেন অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারীরা।

সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে, ক্ষতিকর ম্যালওয়্যারটি থেকে নিরাপদ থাকতে অপরিচিত প্রতিষ্ঠানের তৈরি অ্যাপ বা কনটেন্ট (আধেয়) নামানো যাবে না। একই সঙ্গে অবিশ্বস্ত উৎস থেকে পাঠানো কোনো লিংকে ক্লিক করাও যাবে না।

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য বড় দুঃসংবাদ

প্রকাশের সময় : ০৯:২০:৪৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪

নতুন ম্যালওয়্যারের সন্ধান পেয়েছে সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ‘প্রমোন’। যা অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের বায়োমেট্রিক প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন যাচাইকরণ সুবিধাকে এড়িয়ে তথ্য চুরি করতে সক্ষম।

সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ‘প্রমোন’ এর বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ম্যালওয়্যারটির নাম ‘স্নোব্লাইন্ড’। এটি অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের যেকোনো নিরাপত্তা বলয়কে ফাঁকি দিয়ে স্মার্টফোন ও অ্যাপ থেকে তথ্য চুরি করতে পারে। এটি মোবাইল ফোনে প্রবেশ করলেও ফোনের সিকিউরিটি স্ক্যানারসহ বিভিন্ন নিরাপত্তাব্যবস্থা তা শনাক্ত করতে পারে না। ‘স্নোব্লাইন্ড’ অ্যাপের যাচাইকরণ পদ্ধতিও ফাঁকি দিতে পারে। ফলে ব্যবহারকারীদের ফোনে যেসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে, সেগুলো থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে থাকে অ্যাপটি।

‘প্রমোন’ জানায়, ম্যালওয়্যারটি ফোনে থাকলেও তা বোঝার উপায় থাকে না ব্যবহারকারীদের। ফলে ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে দূরে থাকা সাইবার অপরাধীদের কাছে পাঠাতে থাকে ম্যালওয়্যারটি। ফলে যেকোনো সময় সাইবার হামলার কবলে পড়তে পারেন অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারীরা।

সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে, ক্ষতিকর ম্যালওয়্যারটি থেকে নিরাপদ থাকতে অপরিচিত প্রতিষ্ঠানের তৈরি অ্যাপ বা কনটেন্ট (আধেয়) নামানো যাবে না। একই সঙ্গে অবিশ্বস্ত উৎস থেকে পাঠানো কোনো লিংকে ক্লিক করাও যাবে না।