বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত: ওবায়দুল কাদের

ছবি: সংগৃহীত

কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমরা কোটামুক্ত সিদ্ধান্তই নিয়েছিলাম। এখন আমাদের অবস্থান আদালতের ওপর নির্ভরশীল। আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে। আশা করি, আদালত বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নেবেন।

আজ বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আপিল বিভাগের আদেশের পর এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আদালত চূড়ান্ত রায়ের মাধ্যমে এ বিষয়ের নিষ্পত্তি করবেন। আদালত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেছেন। শিক্ষার্থীদের অসন্তোষ বিবেচনা করে আদালত বাস্তবসম্মত রায় প্রকাশ করবেন বলে আশা করি। পুরো রায় না আসা পর্যন্ত ধৈর্য ধারণ করতে বলছি। মানুষের দুর্ভোগ যাতে না হয়, সেদিকে শিক্ষার্থীদের খেয়াল রাখতে হবে। ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা কি ভাবছে তা এখনই বলা সম্ভব না। এক ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া বলা যাবে না। আজ ও কাল দেখি। তারপর বুঝা যাবে, আপনারা ধৈর্য ধরুন।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়ে আমাদের যোগাযোগ আছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে।

এসময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশের সময় : ০৩:১৮:৩১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমরা কোটামুক্ত সিদ্ধান্তই নিয়েছিলাম। এখন আমাদের অবস্থান আদালতের ওপর নির্ভরশীল। আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে। আশা করি, আদালত বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নেবেন।

আজ বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আপিল বিভাগের আদেশের পর এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আদালত চূড়ান্ত রায়ের মাধ্যমে এ বিষয়ের নিষ্পত্তি করবেন। আদালত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেছেন। শিক্ষার্থীদের অসন্তোষ বিবেচনা করে আদালত বাস্তবসম্মত রায় প্রকাশ করবেন বলে আশা করি। পুরো রায় না আসা পর্যন্ত ধৈর্য ধারণ করতে বলছি। মানুষের দুর্ভোগ যাতে না হয়, সেদিকে শিক্ষার্থীদের খেয়াল রাখতে হবে। ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা কি ভাবছে তা এখনই বলা সম্ভব না। এক ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া বলা যাবে না। আজ ও কাল দেখি। তারপর বুঝা যাবে, আপনারা ধৈর্য ধরুন।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়ে আমাদের যোগাযোগ আছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে।

এসময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।