বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ফের আমদানি-রফতানি শুরু

বেনাপোল প্রতিনিধি।।টানা চারদিন ঈদের ছুটি শেষে বেনাপোল -পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আবারও শুরু হয়েছে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যিক কার্যক্রম।
শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত দুই দেশের মধ্যে এ বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে গত মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যšত টানা ৪ দিন ঈদের ছুটিতে বন্দর বন্ধ ছিল। আজ শনিবার সকাল থেকে ২০১ ট্রাক পন্য আমদানি হয়েছে ভারত থেকে। রফতানি হয়েছে মাত্র ৩৫ ট্রাক পণ্য। সকাল থেকে বন্দরে পণ্য আনলোডের জন্য ৩ হাজার শ্রমিক কাজে যোগদান করেছে।

বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল জানান, ঈদের ছুটিতে বেনাপোল বন্দরে আমদানি রফতানি বাণিজ্য বন্ধ ছিল। এসময় অক্সিজেন ছাড়া অন্য কোন পণ্য আমদানি হয়নি ভারত থেকে । শুক্রুবার ছুটি শেষে আবারও দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বানিজ্য শুরু হয়েছে। বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা ছুটিতে গিয়েছিলেন সবাই কর্মস্থলে যোগদান করেছেন। ব্যবসায়ীরা যাতে বন্দর থেকে আমদানি পণ্য দ্রুত খালাস নিতে পারেন সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, ঈদের ছুটির মধ্যেও জরুরি অক্সিজেন আমদানি হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে সব ধরনের পণ্যের আমদানি শুরু হয়েছে। সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ছুটি কাটিয়ে কাজে যোগদান করেছে।কাস্টমস হাউস খোলা রয়েছে আজ। দেশের অর্থনীতি সচল ও পণ্য সরবরাহের   ক্ষেত্রে করোনাকালীন সময় আমদানি-রফতানি পণ্য ছাড় করাতে কাস্টমস হাউজ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পণ্য খালাশ দিচ্ছে।

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ফের আমদানি-রফতানি শুরু

প্রকাশের সময় : ০৯:১১:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১

বেনাপোল প্রতিনিধি।।টানা চারদিন ঈদের ছুটি শেষে বেনাপোল -পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে আবারও শুরু হয়েছে আমদানি-রফতানি বাণিজ্যিক কার্যক্রম।
শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত দুই দেশের মধ্যে এ বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে গত মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যšত টানা ৪ দিন ঈদের ছুটিতে বন্দর বন্ধ ছিল। আজ শনিবার সকাল থেকে ২০১ ট্রাক পন্য আমদানি হয়েছে ভারত থেকে। রফতানি হয়েছে মাত্র ৩৫ ট্রাক পণ্য। সকাল থেকে বন্দরে পণ্য আনলোডের জন্য ৩ হাজার শ্রমিক কাজে যোগদান করেছে।

বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল জানান, ঈদের ছুটিতে বেনাপোল বন্দরে আমদানি রফতানি বাণিজ্য বন্ধ ছিল। এসময় অক্সিজেন ছাড়া অন্য কোন পণ্য আমদানি হয়নি ভারত থেকে । শুক্রুবার ছুটি শেষে আবারও দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বানিজ্য শুরু হয়েছে। বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা ছুটিতে গিয়েছিলেন সবাই কর্মস্থলে যোগদান করেছেন। ব্যবসায়ীরা যাতে বন্দর থেকে আমদানি পণ্য দ্রুত খালাস নিতে পারেন সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, ঈদের ছুটির মধ্যেও জরুরি অক্সিজেন আমদানি হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে সব ধরনের পণ্যের আমদানি শুরু হয়েছে। সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ছুটি কাটিয়ে কাজে যোগদান করেছে।কাস্টমস হাউস খোলা রয়েছে আজ। দেশের অর্থনীতি সচল ও পণ্য সরবরাহের   ক্ষেত্রে করোনাকালীন সময় আমদানি-রফতানি পণ্য ছাড় করাতে কাস্টমস হাউজ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পণ্য খালাশ দিচ্ছে।