সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুপাড়ি চুরির অপবাদ, দু’জন ৩য় শ্রেণির ছাত্রকে নির্যাতন

লালমনিরহাট সদর উপজেলার হারাটি  ইউনিয়নে, সুপারি চুরির সন্দেহে দুই শিশুকে পাশবিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছে। হারাটি ইউনিয়নের ওকড়াবাড়ির খামারবাড়ি এলাকায়, শুক্রবার (১৭ মে) রাতে শিশু নির্যাতনের এই ঘটনা ঘটে।
নির্যাতিত শিশু আসিফ (৮) ওই এলাকার মোশারফ হোসেনের ছেলে এবং আরেক শিশু শরিফুল (৯) একই এলাকার আমিনুর ইসলামের ছেলে। তারা দুইজনেই হারাটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায় , সুপারি চুরির সন্দেহে ওই দুই শিশুকে সুকৌশলে ডেকে নিয়ে বেধড়ক কিল-ঘুসি ও লাঠি দিয়ে পেটায় সাগর ভ্যান্ডার নামক এক ব্যক্তি। এছাড়াও তাদের হাত পা বেঁধে, মুখে গামছা ও টেপ পেঁচিয়ে  মোটরসাইকেলের রডের তালা দিয়ে পেটায় ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি। এতে ওই দুই শিশু অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে এলাকাবাসী শিশু দুটিকে সজ্ঞাহীন অবস্থায় উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে ওই হাসপাতালেই তারা চিকিৎসাধীন রয়েছে। অভিযুক্ত সাগর ভ্যান্ডার একই এলাকার মৃত-আইয়ুব আলী ভেন্ডারের ছেলে।
নির্যাতের শিকার আসিফ জানান, ‘আমরা সুপারি চুরি করি নাই। কিন্তু সাগর চাচা আমাদেরকে কায়দা করে তুলে নিয়ে যায়। আমি তার মাইর সহ্য করতে না পেরে তার পা ধরতে চেয়েছি’। নির্যাতিত অপর শিশু শরিফুল বলেন, ‘আমাদের গলায় ছুরি রেখে আমরা সুপারি চুরি করেছি তা স্বীকার করতে বাধ্য করানো হয়। কিন্তু আমরা তো চুরি করি নাই।  আমরা এর বিচার চাই’।এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত সাগর ভ্যান্ডার একজন মাদকসেবী ও বখাটে যুবক। এক সময় সাগর তার পিতার ভ্যান্ডারী পেশায় (দলিল লেখক) নিয়োজিত হয়। তবে সে মাদক ব্যবসার সাথেও জড়িত বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় অনেকেই। এ বিষয়ে অভিযুক্ত সাগরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, সে  কলটি কেটে দেয় এবং ফোন বন্ধ করে রাখে।এদিকে এ ঘটনায়, ওই নির্যাতিত শিশুদের একজনের মা লালমনিরহাট সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওমর ফারুক বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

সুপাড়ি চুরির অপবাদ, দু’জন ৩য় শ্রেণির ছাত্রকে নির্যাতন

প্রকাশের সময় : ১১:০০:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪
লালমনিরহাট সদর উপজেলার হারাটি  ইউনিয়নে, সুপারি চুরির সন্দেহে দুই শিশুকে পাশবিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছে। হারাটি ইউনিয়নের ওকড়াবাড়ির খামারবাড়ি এলাকায়, শুক্রবার (১৭ মে) রাতে শিশু নির্যাতনের এই ঘটনা ঘটে।
নির্যাতিত শিশু আসিফ (৮) ওই এলাকার মোশারফ হোসেনের ছেলে এবং আরেক শিশু শরিফুল (৯) একই এলাকার আমিনুর ইসলামের ছেলে। তারা দুইজনেই হারাটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায় , সুপারি চুরির সন্দেহে ওই দুই শিশুকে সুকৌশলে ডেকে নিয়ে বেধড়ক কিল-ঘুসি ও লাঠি দিয়ে পেটায় সাগর ভ্যান্ডার নামক এক ব্যক্তি। এছাড়াও তাদের হাত পা বেঁধে, মুখে গামছা ও টেপ পেঁচিয়ে  মোটরসাইকেলের রডের তালা দিয়ে পেটায় ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি। এতে ওই দুই শিশু অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে এলাকাবাসী শিশু দুটিকে সজ্ঞাহীন অবস্থায় উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে ওই হাসপাতালেই তারা চিকিৎসাধীন রয়েছে। অভিযুক্ত সাগর ভ্যান্ডার একই এলাকার মৃত-আইয়ুব আলী ভেন্ডারের ছেলে।
নির্যাতের শিকার আসিফ জানান, ‘আমরা সুপারি চুরি করি নাই। কিন্তু সাগর চাচা আমাদেরকে কায়দা করে তুলে নিয়ে যায়। আমি তার মাইর সহ্য করতে না পেরে তার পা ধরতে চেয়েছি’। নির্যাতিত অপর শিশু শরিফুল বলেন, ‘আমাদের গলায় ছুরি রেখে আমরা সুপারি চুরি করেছি তা স্বীকার করতে বাধ্য করানো হয়। কিন্তু আমরা তো চুরি করি নাই।  আমরা এর বিচার চাই’।এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত সাগর ভ্যান্ডার একজন মাদকসেবী ও বখাটে যুবক। এক সময় সাগর তার পিতার ভ্যান্ডারী পেশায় (দলিল লেখক) নিয়োজিত হয়। তবে সে মাদক ব্যবসার সাথেও জড়িত বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় অনেকেই। এ বিষয়ে অভিযুক্ত সাগরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে, সে  কলটি কেটে দেয় এবং ফোন বন্ধ করে রাখে।এদিকে এ ঘটনায়, ওই নির্যাতিত শিশুদের একজনের মা লালমনিরহাট সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওমর ফারুক বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে’।